বাংলাদেশ: শুক্রবার ১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১০ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি

  বাংলাদেশ: শুক্রবার ১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১০ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি  

শেষ আপডেটঃ ১০:৪৭ পিএম

অ্যাসিডিটি : প্রতিরোধ ও প্রতিকার

আমাদের প্রতিদিনের খাওয়া খাবারের সাথে পাকস্থলীর অ্যাসিড শরীরের নিচের দিকে নামে। আবার অনেক সময় পাকস্থলীর অ্যাসিড নিচে না নেমে ওপরে গলার দিকে উঠে আসে, তখন আমাদের বুকে জ্বালাপোড়া অনুভূত হয়। আর একেই গ্যাস্ট্রিক, গ্যাস্ট্রিকের ব্যথা বা অ্যাসিডিটি বলা হয়।

অ্যাসিডিটি লক্ষণ সম্পর্কে চিকিৎসকরা বলেন, অ্যাসিডিটি হলে বুকের ঠিক মাঝামাঝি জায়গাটায় জ্বালাপোড়া অনুভব হয়, মুখে অপ্রীতিকর টক স্বাদ আসে। আর এমন তখনই হয় যখন পাকস্থলীর অ্যাসিড মুখে চলে আসে। এছাড়াও অ্যাসিডিটি হলে আরো কিছু লক্ষণ দেখা যায় যেমন, পেট ফাঁপা, বমি ভাব হওয়া, বারবার কাশি বা হেঁচকি হতে থাকা, খাওয়ার পরে, শোবার পরে বা উপুড় হলে লক্ষণগুলো আরো তীব্র রূপ ধারণ করতে পারে।

অনেকেই অ্যাসিডিটি সমস্যাকে গুরুত্ব না দিয়ে বাড়িতেই এর প্রতিকারের উপায় খুঁজতে থাকেন। তাদের জন্য চিকিৎসকরা বলেন, যদি কারো অ্যাসিডিটি সমস্যা হয়ে থাকে তবে শুরুতে ঘরোয়া চিকিৎসা নিতেই পারেন তবে তার জন্য অবশ্যই চিকিৎসের পরামর্শ নিতে হবে। সাধারণত যাদের গ্যাস্ট্রিকের ব্যথা বা অ্যাসিডিটি সমস্যা থাকে তাদের দৈনন্দিন জীবনে কিছু পরিবর্তন আনার মাধ্যমে এটা কমিয়ে আনা এবং এ থেকে একেবারে মুক্তি পাওয়া সম্ভব হয়।

গ্যাস্ট্রিক রোগীদের জন্য চিকিৎসকরা পরামর্শ দেন, যারা গ্যাস্ট্রিকের রোগী তাদের একবারে ভরপেট খেলে এই সমস্যা বেশি হয়। সারা দিনে ভাগ করে অল্প অল্প করে খাবার খাওয়া ভালো। যে সকল খাবার কিংবা পানীয় খেলে সমস্যা বেড়ে যায়, সেগুলো এড়িয়ে চলা উচিৎ। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে ৩-৪ ঘন্টার মধ্যে কিছু খাওয়া ঠিক না। গ্যাস্ট্রিক রোগীর ওজন অতিরিক্ত হলে তা কমিয়ে ফেলার চেষ্টা করতে হবে।

ধূমপান করা থেকে বিরত থাকতে হবে। যদি জীবনধারায় পরিবর্তন এনেও কোন উপকার না হয় তবে সম্পূর্ণ চিকিৎসকের পরামর্শ মত চলতে হবে এবং চিকিৎসক আপনাকে পাকস্থলীর অ্যাসিড তৈরির পরিমাণ কমিয়ে আনতে যে যে ওষুধ খাওয়ার পরামর্শ দিবেন, সেই ওষুধগুলো নিয়মমত খেয়ে যেতে হবে এবং নিজের সুস্থতায় নিজের প্রতি নিজেই যত্নশীল হতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *