বাংলাদেশ: মঙ্গলবার ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৪ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি

  বাংলাদেশ: মঙ্গলবার ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৪ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি  

শেষ আপডেটঃ ১:৫২ পিএম

খেজুরের যত গুণ

খেজুর হল এক ধরণের ফল যা বিশ্বের অনেক গ্রীষ্মমন্ডলীয় অঞ্চলে জন্মে। খেজুর একটি চমৎকার পুষ্টিগুন সম্পন্ন ফল।এতে যথেষ্ট ফাইবার, এন্টিঅক্সিডেন্ট এবং অনেক প্রয়োজনীয় ভিটামিন ও খনিজ রয়েছে যা বিভিন্নভাবে শরীরের উপকারে আসে।

মুলত আমরা যে খেজুর খাই তা শুকনো অবস্থায় থাকে। পাকা খেজুর গাছ থেকে পেড়ে শুকানোর পর তবেই তা বিক্রি করা হয়। শুকনো হওয়ার কারনে এদের ক্যালরি সামগ্রী অন্যান্য তাজা ফলের থেকে বেশি থাকে। খেজুরের বেশিরভাগ ক্যালরি আসে কার্বস থেকে আর খুব অল্প পরিমাণ আসে প্রোটিন থেকে।

১০০ গ্রাম খেজুরে নিম্মলিখিত পুষ্টি উপাদান থাকে :
– ক্যালোরি: ২৭৭
– কার্বোহাইড্রেট: ৭৫ গ্রাম
-ফাইবার: ৭ গ্রাম
– প্রোটিন:২ গ্রাম
-পটাসিয়াম: RDI এর ২০%
-ম্যাগনেসিয়াম: RDI এর ১৪%
-তামা: RDI এর ১৮%
-ম্যাঙ্গানিজ: RDI এর ১৫%
-আয়রন: RDI এর ৫%
-ভিটামিন বি 6: আরডিআই এর ১২%

খেজুরে ফাইবার রয়েছে যা আমাদের সামগ্রিক স্বাস্থ্যের জন্যই অনেক গুরুত্বপূর্ণ। ফাইবার কোষ্ঠকাঠিন্য রোধ করে এবং রক্তের সুগ্যার কন্ট্রোলে রাখে। শরীরের মেকানিজম বৃদ্ধি করে এবং হজম দ্রুততর করে। এক গবেষণায়, ২১ জন যারা ২১ দিনের জন্য প্রতিদিন ৭ টি খেজুর খেয়েছেন তাদের মলত্যাগের ফ্রিকোয়েন্সি যখন তারা খেজুর না খেয়েছিলেন তার তুলনায় উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছিলো।

খেজুরে বিভিন্ন ধরণের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যা দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থতা যেমন হৃদরোগ, ক্যান্সার, আল্জ্হেইমের এবং ডায়াবেটিসের বিকাশ রোধ করতে সাহায্য করে। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরের কোষগুলোকে ফ্রি রেডিকেল হতে রক্ষা করে যেকোনো ক্ষতিকর রোগ তৈরিতে বাধা প্রদান করে। অন্যান্য শুকনো ফলের তুলনায় খেজুরে সর্বাধিক পরিমান অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আছে।

খেজুর মস্তিষ্কের জন্যও বেশ ভালো। ল্যাবরেটরি গবেষণায় দেখা গেছে যে মস্তিষ্কে ইন্টারলিউকিন এর মতো প্রদাহজনক চিহ্নগুলি হ্রাস করার জন্য খেজুর সহায়ক ভূমিকা রাখে। প্রাণী গবেষণায় অ্যামাইলয়েড বিটা প্রোটিনের ক্রিয়াকলাপ হ্রাস করার জন্য যা মুলত মস্তিষ্কে ফলক তৈরি করতে পারে এ অবস্থা হ্রাসেও খেজুর উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখে।

গর্ভাবস্থার শেষ কয়েক সপ্তাহ ধরে খেজুর খেলে তা জরায়ুর প্রসারণকে উৎসাহিত করতে পারে ফলে লেবার পেইন কিছুটা কম হয়। খেজুরে ট্যানিন থাকে, যা প্রাকৃতিক চিনি এবং ক্যালোরিগুলির একটি ভাল উৎস, এটি শ্রমের সময় শক্তির মাত্রা বজায় রাখার জন্য প্রয়োজনীয়। এছাড়াও খেজুর মস্তিষ্কে অক্সিটোসিন হরমোন উৎপাদন বাড়িয়ে দেয় বলেও ধারনা করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *