বাংলাদেশ: সোমবার ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৩ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি

  বাংলাদেশ: সোমবার ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৩ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি  

শেষ আপডেটঃ ১:৫২ পিএম

চোখ থেকে কেন পানি পড়ে

সাধারণত কষ্ট পেলে, ব্যাথা পেলে বা কখনো রাগ করলে অনেক সময় আমাদের এ অনুভুতির গুলোর বহিঃপ্রকাশ ঘটে চোখের পানি বা অশ্রুর মাধ্যমে। চোখের পানি কিন্তু আমরা ইচ্ছা করলেই আনতে পারিনা বরং অনুভূতির তীব্রতা থেকেই এই পানি আসে এবং মোটামুটি সবাই জানে এর স্বাদ লবনাক্ত। চোখের পানি কিন্তু শুধুই অনুভূতির বহিঃপ্রকাশের একটি বস্তুই নয় বরং এটি চোখের পরিষ্কার ও অন্যান্য কিছু কাজেও ভূমিকা রাখে। একটি প্রচলিত কথা আছে যে কাদলে চোখ ভালো থাকে। এটা আসলে চোখের পানির গুনাবলির উপর ভিত্তি করেই বলা হয়ে থাকে। তবে বেশি কাদলেও কিন্তু আবার সমস্যা আছে। জীবনে সবকিছু ততক্ষনই ভালো যতক্ষন সীমা ছাড়িয়ে না যায়।

চোখ থেকে পানি পড়ার ও তিনটি ভিন্ন ভিন্ন কারন আছে। যেমন –

১, বেসাল কান্না : এটা মুলত চোখের পুষ্টি বজায় রাখে এবং চোখে কোনো ময়লা পড়লে তা বের করে দেয়।

২, রিফ্লেক্স কান্না : এই কান্না হয় মুলত কোনো ক্রিয়ার প্রতিক্রিয়া স্বরূপ। যেমন পেয়াজ কাটার সময় বা ধোয়া চোখে লাগলে তখন এ কান্না হয়ে থাকে।

৩, ইমোশনার কান্না : এটা মুলত আবেগের বহিঃপ্রকাশ। আনন্দ, দুঃখ, কষ্ট, রাগ,ব্যাথা এসব থেকে যে কান্নার উৎপত্তি হয়।

আমেরিকান একাডেমি অফ অপথালমোলজি (এএও) অনুসারে,একজন মানুষের চোখ প্রতি বছর ১৫ থেকে ৩০ গ্যালন অশ্রু তৈরি করে। চোখের উপরে অবস্থিত ল্যাক্রিমাল গ্রন্থি দ্বারা অশ্রু উৎপন্ন হয়।প্রতিবার যখন চোখের পলক ফেলা হয়, তখন একটি “টিয়ার ফিল্ম” নামক অশ্রুর একটি পাতলা স্তর কর্নিয়ার পৃষ্ঠ (চোখের স্পষ্ট বাইরের স্তর) জুড়ে ছড়িয়ে পড়ে। আপনার চোখের উপরের। উপরের তিনটি কারনে অশ্রুগ্রন্থি থেকে বেশি অশ্রু তৈরি হয়ে অশ্রু নালী (চোখের অভ্যন্তরীণ কোণে ছোট ছিদ্র) এবং নাক দিয়ে নিচে প্রবাহিত হয়।

অশ্রু চোখ ভেজা এবং মসৃণ রাখে, এবং আলোক আলোকিত করতে সাহায্য করে যাতে আপনি স্পষ্ট দেখতে পান। এছাড়াও অশ্রু চোখকে সংক্রমণ এবং বিরক্তিকর জিনিস যেমন ময়লা এবং ধূলিকণা থেকে রক্ষা করে।যখন চোখ পর্যাপ্ত অশ্রু তৈরি করে না, অথবা অশ্রু সঠিকভাবে কাজ করে না,তখন “শুষ্ক চোখ” বা “ড্রাই আই” নামক চোখের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *