বাংলাদেশ: রবিবার ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১২ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি

  বাংলাদেশ: রবিবার ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১২ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি  

শেষ আপডেটঃ ১:৫২ পিএম

ছাগল পালনে করণীয়

ছাগল গৃহপালিত পশু। গ্রামে অনেক পরিবারেই ছাগল পালন করা হয়। ছাগল পালনের মাধ্যমে অনেক বেকার যুবক তাদের কর্মসংস্থানের উপায় বের করে নেন। এ কাজে তেমন খরচ নেই। কারন ছাগল সারাদিন বাইরে বাইরে ঘুরে বেড়ায়। পাখিরা যেমন সেই সকালে নিজ বাসা থেকে বের হয় আর সন্ধ্যায় ফেরে, ছাগল ও তেমন সকালে বের হয়, সারাদিন বাইরে খেয়ে সন্ধ্যায় ফেরে। এজন্য ছাগল পালনে মানুষের তেমন কোন পরিশ্রম হয় না বললেই চলে। তবে অনেকেই বদ্ধ পরিবেশে ছাগল পালন করে থাকেন। অনেকে ছাগলের খামার তৈরি করেন। অনেকে আবার আবদ্ধ ও অর্ধ আবদ্ধ পদ্ধতিতে ছাগল পালন করেন। এ দুই পদ্ধতিতে ছাগল পালনে ব্য়য়িত অর্থ উপার্জিত অর্থের তুলনায় অনেক বেশি।

জেনে নিন ছাগল পালনে যা যা প্রয়োজন:

আপনি যদি আবদ্ধ অবস্থায় ছাগল পালন করেন তবে প্রথমে ঘরের জন্য উঁচু ও শুকনা জায়গা নির্বাচন করেন। এ পদ্ধতিতে ঘর তৈরি করার জন্য কাঠ, বাঁশ, টিন, ছন, গোলপাতা ব্যবহার করলে ঘর তৈরিতে খরচ কম হবে। ঘর তৈরি করার সময় প্রতিটি বয়স্ক ছাগলের জন্য ১ বর্গমিটার (১০ বর্গফুট) জায়গার প্রয়োজন হবে। মেঝে স্যাঁতসেঁতে হলে ছাগলের ঘরে মাচা তৈরি করে দিতে হবে।

ছাগলকে সম্পূর্ণ আবদ্ধ অবস্থায় প্রয়োজনীয় সবুজ ঘাস, দানাদার খাদ্য ও পানি সরবরাহ করতে হবে। তবে প্রতিদিন কয়েক ঘণ্টার জন্য ঘরের বাইরে ঘুরিয়ে নিয়ে এলে এদের স্বাস্থ্য ভালো থাকে। নতুন ছাগল দিয়ে খামার শুরু করলে প্রথমেই সম্পূর্ণ আবদ্ধ অবস্থায় রাখা যাবে না। আস্তে আস্তে এদের চারণ সময় কমিয়ে আনতে হবে। নতুন পরিবেশের সাথে অভ্যস্ত হলে খাদ্য গ্রহণে আর সমস্যা দেখা দিবে না।

অর্ধ-আবদ্ধ পদ্ধতিতে ছাগল পালনের সময় আবদ্ধ ও ছাড়া পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়। খামারে আবদ্ধ অবস্থায় এদের দানাদার খাদ্য সরবরাহ করা হয়। মাঠে চারণের মাধ্যমে এরা সবুজ ঘাস খেয়ে থাকে। বর্ষার সময় মাঠে নেয়া সম্ভব না হলে সবুজ ঘাসও আবদ্ধ অবস্থায় সরবরাহ করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *