বাংলাদেশ: সোমবার ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৩ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি

  বাংলাদেশ: সোমবার ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৩ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি  

শেষ আপডেটঃ ১:৫২ পিএম

ডেঙ্গুতে মারা গেলে আর্থিক সহযোগীতা পাবে পরিবার

সারাদেশে ডেঙ্গুর প্রকোপ প্রতিনিয়ত বাড়ছে। এতে একদিকে যেমন বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা, সেইসাথে পাল্লা দিয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে আক্রান্তের পরিবারের ভোগান্তি। তাই ডেঙ্গুতে মারা যাওয়া কোনো ব্যক্তির পরিবার আর্থিক সহযোগিতা চেয়ে আবেদন করলে সেটি বিবেচনায় নেয়ার আশ্বাস দিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী তাজুল ইসলাম।

শুক্রবার (০৩ সেপ্টম্বর) রাজধানীর তেজগাঁওয়ে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশনে (এফডিসিতে) ছায়া সংসদে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তাজুল ইসলাম।

মন্ত্রী বলেন, প্রতিটি মৃত্যুই অত্যন্ত বেদনাদায়ক। আমরা কেউ এ ধরনের মৃত্যু চাই না। এরপরও যারা মারা গেছেন তাদের কোনো পরিবার সহযোগিতা চাইলে সেটা আমলে নেয়া হবে।

তিনি বলেন, একাধিক উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুবরণ করায় শুধু ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে, নাকি অন্য কোনো কারণে মারা গেছেন এগুলো আইইডিসিআর থেকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে হয়তো একটু সময় লাগতেছে, কিন্তু সব হাসপাতাল থেকে সঠিক তথ্য আসতেছে।

তাজুল বলেন, ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে সরকারের নানা উদ্যোগ এবং জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সেপ্টম্বরের পর থেকে দেশে এডিস মশা এবং ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব কমবে।

প্রকোপ বাড়লেই শুধু সরকার কাজ করে-এমন অভিযোগ সরাসরি নাকচ করে তাজুল ইসলাম বলেন, মশার প্রকোপ বাড়লেই শুধু নিধন শুরু হয় এটি ঠিক নয়। সরকার সারা বছর ধরেই মশক নিধন কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে।

মশার প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণে বছরজুড়ে কাজ চলমান বলেও জানান মন্ত্রী। তিনি আরও বলেন, প্রতি মাসেই সিটি করপোরেশনসহ সংশ্লিষ্ট সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে নিয়ে সভা করে স্ব স্ব দায়িত্ব বণ্টন করে দেয়া হয়। এরপর সবাই অর্পিত দায়িত্ব পালন করে। এ ব্যাপারে কারও অবহেলা করার সুযোগ নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *