বাংলাদেশ: রবিবার ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১২ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি

  বাংলাদেশ: রবিবার ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১২ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি  

শেষ আপডেটঃ ১:৫২ পিএম

দেশের সফল ১০ কণ্ঠশিল্পী

গান ভালোবাসেন না এমন মানুষ পাওয়া যাবে না। অনেক মানুষ আছেন যাদের সকাল শুরু হয় গান শুনতে শুনতে, আর রাতের ঘুম সেতো গান ছাড়া হয়’ই না! এক একজনের প্রিয় শিল্পীর তালিকায় রয়েছেন দেশ- বিদেশের স্বনামধন্য কণ্ঠশিল্পীরা। আজ আপনাদের জানাবো আমাদের দেশের ১০ জন কণ্ঠশিল্পী সম্পর্কে। যারা সুন্দর সুন্দর গান কন্ঠে ধারণ করে ভক্তদের হৃদয় ছুঁয়ে দিয়েছে। আসুন এবার জেনে নেই দেশের ১০ জন সফল কণ্ঠশিল্পী সম্পর্কে-

১. এন্ড্রু কিশোর: এন্ড্রু কিশোরের পুরো নাম এন্ড্রু কিশোর কুমার বাড়ৈ। তিনি ১৯৫৫ সালে রাজশাহীতে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বাংলাদেশের একজন প্রখ্যাত কণ্ঠশিল্পী। দেশের মিউজিক ইন্ডাস্ট্রি এবং চলচিত্রে প্লেব্যাক কণ্ঠ দেওয়ার জন্য তাকে প্লেব্যাক সম্রাট উপাধি দেওয়া হয়।

২. সাবিনা ইয়াসমিন: সাবিনা ইয়াসমিন ১৯৫৪ সালে বাংলাদেশের সাতক্ষীরায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি অনেক গুণী একজন শিল্পী। তিনি প্রায় সব ধরনের গান গাওয়ায় পারদর্শী।

৩. রুনা লায়লা: রুনা লায়লা একজন বহুমুখী কণ্ঠশিল্পী। তিনি বাংলাদেশের সিলেটে ১৯৫২ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তার মা একজন শিল্পী ছিলেন এবং তার মামার ভারতে কণ্ঠশিল্পী হিসেবে নাম ডাক ছিল।

৪. আইয়ুব বাচ্চু: আইয়ুব বাচ্চু বাংলাদেশের চট্টগ্রামে ১৯৬২ সালে জন্মগ্রহণ করেন। যদিও তিনি একজন রক ব্যান্ড শিল্পী ছিলেন কিন্তু তিনি কয়েকটি জনপ্রিয় একক অ্যালবাম তৈরি করেছিলেন। বন্ধুর গীটার দিয়ে গীটার বাজানো শেখা আইয়ুব বাচ্চু হয়ে উঠেন বাংলাদেশের সব থেকে প্রভাবশালী গীটার বাদক।

৫. আসিফ আকবর: আসিফ আকবর ১৯৭২ সালে কুমিল্লা জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বাংলাদেশের একজন স্বনামধন্য পপ সংগীত শিল্পী। তিনি তার অভিনয় প্রতিভার প্রকাশ করেছেন ২০১৯ সালের গহীনের গান নামক চলচিত্রের মাধ্যমে।

৬. হাবিব ওয়াহিদ: হাবিব তার বিশেষ ধারার মিউজিক পরিচালনার জন্য সবার কাছে পরিচিত। তিনি লোকগীতি গানের সাথে টেকনো এবং ওয়েস্টার্ন বিটের সমন্বয় করে যে গানের ধারার প্রবর্তন করেন তা সারা দেশে ব্যাপক পপুলারিটি পায়।

৭. বালাম: বালাম একজন বাংলাদেশী গায়ক, গীতিকার এবং সুরকার। তিনি ১৯৭৫ সালে ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। তার পুরো নাম কাজী মোহাম্মদ আলী জাহাঙ্গীর বালাম। তিনি ক্যারিয়ারের শুরুতে নিজের ব্যান্ড রেনিগেডস প্রতিষ্ঠা করেন এবং পরবর্তীতে আর্ক, পেন্টাগন এবং ওয়ারফেজে দ্বিতীয় ও পরে প্রথম ভোকালিস্ট হিসেবে কাজ করেন।

৮. জেমস: জেমস এর পুরো নাম ফারুক মাহফুজ আনাম। তিনি রাজশাহীর নওগাঁ জেলায় ১৯৬৮ সালে জন্মগ্রহণ করেন। জেমসকে মিউজিক ইন্ডাস্ট্রিতে অবদানের জন্য গুরু বলে ডাকা হয়। তিনি একাধারে সুরকার, গীতিকার, অভিনেতা, কণ্ঠশিল্পী, গিটারিস্ট এবং বলিউড প্লেব্যাক কণ্ঠশিল্পী।

৯. তাহসান রহমান খান: তিনি একাধারে শিক্ষক, লেখক, সংগীত শিল্পী, মডেল, উপস্থাপক, গিটারিস্ট এবং অভিনেতা। মিডিয়া জগতে তাকে সবাই তাহসান নামেই চেনে।

১০. অর্ণব: অর্ণবের পুরো নাম শায়ান চৌধুরী অর্ণব। তিনি ১৯৭৮ সালে ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। ক্যারিয়ার শুরুর দিকে তিনি বাংলা নামক একটি পপুলার ব্যান্ডের সদস্য ছিলেন। পরে নিজের একটি ব্যান্ড তৈরি করেন এবং একক অ্যালবাম রিলিজ করার দিকে মনোযোগ দেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *