বাংলাদেশ: সোমবার ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৩ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি

  বাংলাদেশ: সোমবার ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৩ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি  

শেষ আপডেটঃ ১:৫২ পিএম

বাসায় কুকুর পালন, কতটা নিরাপদ

কুকুর পালতে সাধারণত অনেকেই পছন্দ করে থাকে। প্রভূভক্ত এ প্রানীও মানুষের ভালোবাসা বুঝে। পশুপ্রেমীরা এসকল প্রানীদের অনেকটা নিজ সন্তানের মতোই দেখেন। তাই তো নিজ বাসস্থানেই বেশিরভাগ সময় কুকুরকে স্থান দিয়ে থাকেন।একটি কুকুর একটি ঘরকে শুরু আনন্দ দিয়েই পূর্ন করে না বরং একইসাথে ব্যাকটেরিয়া দিয়েও পূর্ন করে। কিন্তু তারমানে এই না যে এখন পশুটিকে ঘর থেকে বাইরে ফেলে দিতে হবে।

নর্থ ক্যারোলিনা স্টেট ইউনিভার্সিটির গবেষণায় প্লোস ওয়ান জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে যে কুকুর সহ বাড়িতে, কুকুর ছাড়া বাড়ির তুলনায় অনেক বেশি সংখ্যক ব্যাকটেরিয়া এবং বেশি ধরনের ব্যাকটেরিয়া থাকে। এই অনুসন্ধানগুলি একটি বৃহত্তর গবেষণার অংশ ছিল যা এনসি-র রেলি-ডুরহাম এলাকায় ৪০ টি বাড়িতে বসবাসকারী জীবাণুর ধরন বিশ্লেষণ করে। অংশগ্রহণকারীরা তাদের বাড়িতে কুকুর আছে কিনা বা বিড়াল এবং কতজন মানুষ বাস করত সব বিষয়েই গবেষকদের অবহিত করেন।

ওই ঘরগুলোতে সাধারণত বালিস কেস এবং টিভির স্ক্রিনে কুকুর দ্বারা আগত ব্যাকটেরিয়াগুলো বেশি পাওয়া গিয়েছিলো। গবেষকদের মতে এসব জীবানু বেশিরভাগই কুকুরের থেকে এবং কিছু কুকুর দ্বারা বাইরে থেকে মাটির সাথে এসেছে। এবার স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন জাগে যে এই ব্যাকটেরিয়া গুলো মানব শরীরে কিরকম প্রভাব ফেলে।জীবানু গুলো নিয়ে গবেষণায় দেখা গেছে এরা বেশিরভাগ ই মানুষের শরীরে সাধারণত ক্ষতি করেনা আর করলেও সাধারণ মাড়ির ব্যাথা, নিউমোনিয়া এসব রোগের সৃষ্টি করতে পারে। গবেষণায় আরও অদ্ভুত একটি তথ্য উঠে এসেছে যা হচ্ছে এই কুকুরের ব্যাকটেরিয়া গুলো কিছু ক্ষেত্রে মানুষের শরীরের জন্য উত্তম।

গবেষণার তথ্যমতে এক্টি শিশুর জীবনের প্রথম বছরে একটি পোষা প্রাণীর কাছ থেকে অণুজীবের সংস্পর্শে আসা শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করতে পারে, যা পরে অ্যালার্জি হওয়ার ঝুঁকি কমায়। এছাড়াও বলা হয়েছে যে,।গর্ভবতী অবস্থায় কুকুরের সাথে বসবাসকারী মায়েদের এটোপিক ডার্মাটাইটিস বা অ্যালার্জি হওয়ার মতো সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে।

তাই বাড়িতে কুকুর পালন নিরাপদ ই বলা যায়। তবে কুকুরটিকে যতটা সম্ভব পরিষ্কার অবস্থায় রাখলে ভালো হয়। আর কুকুরের গায়ে হাত বুলোনো বা বাচ্চারা কুকুরের সাথে খেলতে এরপর অবশ্যই হাত ধুয়ে নেয়া উচিৎ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *