বাংলাদেশ: মঙ্গলবার ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৪ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি

  বাংলাদেশ: মঙ্গলবার ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৪ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি  

শেষ আপডেটঃ ১:৫২ পিএম

মানসিক অস্থিরতার থেকে নিজেকে দূরে রাখুন

অস্থিরতা এমন একটা ব্যাধি যা না কাজ করতে দেয় না ঘুমাতে দেয়। পরিস্থিতির চাপে পড়ে, কখনো মানসিক প্রেসারে, কখনো বা জীবনের ব্যর্থতা বরণে মানুষ প্রতিনিয়ত এমন মানসিক অস্থিরতায় ভোগেন। একে অবহেলা করলে তা দীর্ঘমেয়াদে তীব্র মানসিক অস্বস্তিতে পরিণত হয় এবং দৈনন্দিন জীবনের সুন্দর অভ্যাসগুলোতে বিশৃঙ্খলা তৈরি করতে থাকে।

জেনে নিন কিভাবে মানসিক অস্থিরতা দূর করবেন-

অস্থিরতা দেখা দিলে প্রথমে নাক দিয়ে ধীরে ধীরে গভীর শ্বাস নিন। বুক ভরে ভিতরের সব খালি জায়গা বাতাসে ভরে ফেলুন। নিশ্বাস কিছুক্ষণ বন্ধ রাখুন। তারপর মুখ দিয়ে ধীরে ধীরে শ্বাস ছাড়ুন। এভাবে পরপর কয়েকবার করুন। মনটা শান্ত করার জন্য আপনি গান শোনা, গল্পের বই পড়া, কবিতা পড়া, নিজের ভালোলাগার কাজগুলো করুন। কাজগুলো মনটাকে অন্য দিকে সরিয়ে নিয়ে অস্থিরতা কাটাতে সাহায্য করবে।

মনের অস্থিরতা কমাতে জীবনের সুখস্মৃতিগুলো মনে করুন। অস্থিরতার বিষয়টিকে পাত্তা না দিয়ে মন শান্ত করার চেষ্ট করুন। যে কারণে অস্থিরতা তৈরি হয়েছে সেই কারনগুলো কারো সঙ্গে শেয়ার করুন এতে মন হাল্কা হবে এবং অস্থিরতা কমে যাবে।

আপনি হয়তো মানসিক অস্থিরতা কমাতে একাকীত্ব বেছে নিচ্ছেন, কাছের মানুষদের থেকে নিজেকে সরিয়ে নিচ্ছেন এতে আপনার অস্থিরতা আরো বাড়বে বৈকি কমবে না! তাই যখন নিজের ভিতর অস্থিরতা কাজ করবে তখন একা না থেকে পরিবার বা বন্ধুদের সাথে সময় কাটানোর চেষ্টা করুন। মন শান্ত করতে কোন খোলা আকাশের নিচে বা কোন সবুজ প্রান্তে ঘুরে আসতে পারেন।

যে বিষয়ের জন্য অস্থিরতায় ভুগছেন সব সময় তা দূর করা সম্ভব নাও হতে পারে। তাই পরিস্থিতির সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করুন। যদি কোনো ব্যক্তির কারণে বা ব্যক্তির আচরণে অস্থিরতা তৈরি হয়, তবে তার সঙ্গে সরাসরি কথা বলে বিষয়টা পরিষ্কার করুন।

সুশৃঙ্খল জীবনযাপনের অভ্যাস করুন, নেশাজাতীয় দ্রব্য এড়িয়ে চলুন। সবার সঙ্গে সময় কাটানোর পাশাপাশি নিজের জন্য আলাদা কিছু নির্দিষ্ট সময় রাখুন। সে সময় নিজের ভালোলাগার কাজটি করুন।

ভবিষ্যতে কী হবে তা নিয়ে ভেবেও ব্যক্তি অনেক সময় মানসিক অস্থিরতায় ভোগেন। তাই ভবিষ্যৎ নিয়ে দুশ্চিন্তা না করে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা করুন, সেই অনুযায়ী মাথা ঠান্ডা রেখে অগ্রসর হন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *