বাংলাদেশ: শনিবার ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৩রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১১ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি

  বাংলাদেশ: শনিবার ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১১ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি  

শেষ আপডেটঃ ১১:৩০ পিএম

যেভাবে ফুটবল খেলার শুরু হয়

ফুটবল, যা ‘অ্যাসোসিয়েশন ফুটবল বা সকার ‘ নামেও পরিচিত এই খেলাটি জনপ্রিয়তার দিক থেকে শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে।সহজ নিয়মের এই খেলাটি অফিসিয়াল ফুটবল খেলার মাঠ (পিচ) থেকে শুরু করে জিমনেশিয়াম, রাস্তাঘাট, স্কুল খেলার মাঠ, পার্ক বা সৈকত পর্যন্ত প্রায় যে কোনও জায়গায় খেলা যায়।

১৯ সেঞ্চুরিতে ব্রিটেনে আধুনিক ফুটবল খেলার উৎপত্তি হয়েছিলো। তবে একদম প্রাথমিক ভাবে ফুটবল খেলার উৎপত্তিস্থল নিয়ে বেশ কিছু দ্বিধা আছে। ফিফার মতে, ২৩০০ বছরেরও বেশি আগে ফুটবলের চর্চা ছিল চীনের “লিন জি” শহরে। “হ্যান রাজবংশের” সময়কালে তখন “CUJU” নামের একটি খেলা হতো যা ফুটবলের সাথে অনেকটা সামঞ্জস্যপূর্ণ। “CUJU” মুলত একটি সামরিক খেলা ছিলো যা দ্বারা সৈন্যদের প্রশিক্ষণ এবং সৈন্যদের শারীরিক অবস্থা পরীক্ষা করা হতো। “CUJU” শব্দটির মধ্যে,CU এর মানে হচ্ছে “লাথি মারা” এবং JU এর মানে হচ্ছে “এক ধরনের চামড়ার বল”। অর্থাৎ চামড়ার ফলে লাথি মেরে যে খেলাটি খেলা হতো তাই “CUJU”। প্রাচীন আরও অনেক সংস্কৃতির ইতিহাসে বল দিয়ে খেলার রীতি থাকলেও ” CUJU” ই প্রথম যেখানে হাতের স্পর্শ ছাড়া বল খেলা হতো। একটি পায়ের চারপাশে একটি বল নিয়ে একটি গেম খেলার বিশেষ শৈলী আস্তে আস্তে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে।

মধ্যযুগীয় সময়ে ইউরোপে বিশেষ করে ইংল্যান্ডের শহরগুলিতে এই ফুটবল খেলাটি খেলা হতো যার তৎকালীন নাম ছিলো “ফোকবল”। তখনকার সময়ে খেলাটির বিশেষ কোনো নিয়মকানুন ছিলোনা, খেলার জেতার জন্য প্রধান লক্ষ থাকতো অপরদলের অধিনায়কের বাড়িতে বলটি পৌছানো এবং এই গন্তব্যের দিকে বলটিকে এগিয়ে নেওয়ার প্রক্রিয়াটি ছিলো বেশ নিষ্ঠুর। যার ফলে খেলাটি খেলার সময় ব্যাপক হট্টগোল শুরু হতো যার ফলস্বরুপ ১৪ শতকে খেলাটিকে নিষিদ্ধ করা হয়।

এরপরে ১৮৬৩ সালে, ইংল্যান্ডে একটি সংগঠিত খেলা তৈরির লক্ষ্যে Football Association (F.A.) ফুটবলের জন্য সরকারী নিয়ম তৈরি করে এবং এর মধ্য দিয়েই আধুনিক ফুটবলের জন্ম হয়।এরপর ধীরে ধীরে আরও অনেকগুলো ক্লাব এই অ্যাসোসিয়েশনের নিয়মে সম্মত হয় এবং অবশেষে ১৮৭২ সালে সর্বপ্রথম F.A.কাপ অনুষ্ঠিত হয়। ফুটবল খেলার প্রতি ইংল্যান্ডের ভালোবাসা পুরো ইউরোপেই ছড়িয়ে যায় এবং শেষ পর্যন্ত দক্ষিণ আমেরিকায় ও ফুটবলের আর্ভিভাব হয়।অতঃপর ১৯০৭ সালের মধ্যে বিশ্বব্যাপী ১২ টি ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন লীগ তৈরি হয়ে যায়।

বর্তমানে এ সংখ্যা ছাড়িয়ে বিশ্বজুড়ে ২০০ টির ও বেশি F.A. লীগ রয়েছে। এবং এভাবেই এই সুন্দর এবং জনপ্রিয় খেলাটি ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফুটবল এখন শুধুমাত্র একটি খেলা নয় বরং সময়ের সাথে সাথে এটি ভক্তদের মনে একটি আবেগের জায়গা তৈরি করে নিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *