বাংলাদেশ: মঙ্গলবার ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৪ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি

  বাংলাদেশ: মঙ্গলবার ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৪ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি  

শেষ আপডেটঃ ১:৫২ পিএম

সিজারে মায়েদের সমস্যা

মাতৃত্ব একজন নারীর জীবনে আনে পরিপূর্ণতা। প্রত্যেকটি মা চায় তাঁর সন্তানটি যেন নিরাপদে পৃথিবীর আলো দেখে। আর সে যেন তাকে সুস্থভাবে দিতে পারে সঠিক সেবা। সিজারিয়ান সেকশন অন্যতম একটি নিরাপদ ও জনপ্রিয় ডেলিভারি পদ্ধতি। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে সিজার পরবর্তী সময়ে মায়েদের কিছু শারীরিক জটিলতা দেখা দেয়। চলুন তবে জেনে নেই সিজার পরবর্তী সমস্যাগুলো:

★ এন্ডোমেট্রাইটি্স:

সিজার পরবর্তী জটিলতা এন্ডোমেট্রাইটি্স সংক্রমণ। এই ধরনের অপারেশন-এর পরে ইউটেরাস ব্যাকটেরিয়া দ্বারা আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি দেখা দেয়। যদি সিজারিয়ান সেকশন-এর পর ব্যাকটেরিয়া ইউটেরাস-এ যে ইনফেকশন বা সংক্রমণ-এর সৃষ্টি করে তাকে মেডিকেল-এর ভাষায় বলা হয় এন্ডোমেট্রাইটি্স। একে সিজারিয়ান ডেলিভারি-এর একটি সরাসরি ফলাফল বললেও ভুল বলা হয় না। কারণ, যে সব মহিলাদের সিজারিয়ান ডেলিভারি হয় তাদের মধ্যে এই ইনফেকশন হওয়ার সম্ভাবনা প্রায় বেশি।

★ পোস্ট সিজারিয়ান ইনফেকশন:

এই অপারেশন-এর পর শুধুমাত্র যে ইউটেরাস-এই ইনফেকশন-এর সম্ভাবনা থাকে তা না, বাইরের চামড়ার স্তরেও অনেক সময় এটা দেখা দেয়। একে প্রায়ই বলা হয় পোস্ট সিজারিয়ান ইনফেকশন। জ্বর, পেটে ব্যথাও এর সাথে দেখা দিতে পারে।

★ রক্তপাত:

সিজার পরবর্তী জটিলতা পোস্ট প্যারাটাম হোমোরেজ কখনো কখনো অন্য কোন জটিলতা থেকে অনেক বেশি রক্তপাত হতে পারে সিজারিয়ান ডেলিভারিতে। এই ধরনের জটিলতাকে ডাক্তারি ভাষায় বলা হয়- পোস্ট প্যারটাম হেমোরেজ ।

★ রক্ত জমাট বাঁধা:

সম্ভবত এটিকেই সবচেয়ে ভীতিকর জটিলতা হিসেবে ধরা হয়। অনেক সময় এই জমাট বাঁধা রক্ত ফুসফুসেও ছড়িয়ে যেতে পারে। অনেক উন্নত দেশেও মায়ের মৃত্যুর অন্যতম কারণ হিসেবে একে দায়ী করা হয়।

★ পরবর্তী সন্তান ধারণে জটিলতা:

কিছু সিজারিয়ান ডেলিভারি-এর জটিলতা পরবর্তী সন্তান ধারণ অসম্ভব হয়ে পড়ে তারপরও মা যদি সুস্থও হয়ে উঠে সার্জারি-এর পরে তবুও পরবর্তী সন্তান ধারণে যথেষ্ট ঝুঁকি থেকে যায়। এই ধরনের সার্জারি ইউটেরাস বা জরায়ুকে দুর্বল করে ফেলে। তবে আশার কথা এটাই যে এখন এই ধরনের সার্জারি-এর পরে সন্তান গ্রহন আগের চেয়ে অনেক নিরাপদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *