মজুতদারদের সঙ্গে বিএনপির যোগসাজশ খতিয়ে দেখা হচ্ছে :কাদের

ডেস্ক এডিটর এজেড নিউজ বিডি, ঢাকা
মজুতদারদের সঙ্গে বিএনপির যোগসাজশ খতিয়ে দেখা হচ্ছে :কাদের
ছবি: সংগৃহীত

বাজার সিন্ডিকেট ও মজুতদারদের সঙ্গে বিএনপির যোগসাজশ খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, “রমজান মাসে সরকারকে বিব্রত করার জন্য বাজারে সিন্ডিকেট থাকতে পারে। খতিয়ে দেখতে হবে, এই ধরনের অপকর্মের সঙ্গে বিএনপির সম্পৃক্ততা আছে কি-না।”

বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মহিলা লীগ ও যুব মহিলা লীগের নেত্রীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, “তারাই (বিএনপি) এসব সিন্ডিকেট করে সরকারকে বিব্রত করার চেষ্টা করছে। নির্বাচিত সরকারের অগ্রযাত্রাকে বাধাগ্রস্ত করতে তারা অপচেষ্টা করতে পারে।”

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, “চলমান বৈশ্বিক যে পরিস্থিতি, অর্থনৈতিক সংকট, সারা বিশ্বে আজকে যে অস্থিরতা চলছে তার প্রভাব প্রতিক্রিয়া বাংলাদেশেও পড়বে। কথা হচ্ছে সরকার বিষয়টিকে কীভাবে মোকাবিলা করছে। শেখ হাসিনা ক্রাইসিস ম্যানেজার হিসেবে যথাযথ দায়িত্ব পালন করছেন। দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণেও তিনি বিভিন্নভাবে প্রয়াস অব্যাহত রেখেছেন।”

সিঙ্গাপুরে রুটিন হেলথ চেকআপে গিয়ে দেখা নিজের অভিজ্ঞতার তুলে ধরে তিনি বলেন, “সেখানে (সিঙ্গাপুর) জিনিসপত্রের দাম দুই থেকে তিন গুণ বেড়েছে। আমাদের দেশে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চলছে। এখানে সরকার নিষ্ক্রিয় নেই। প্রধানমন্ত্রী সারাক্ষণ সংকট মোকাবিলায় সময় দিচ্ছেন। আমাদের এখানে কোনো অবহেলা নেই।”

মজুতদার ও সিন্ডিকেট নিয়ে মন্ত্রী বলেন, “যারা মজুতদার, তাদের খুঁজে বের করা হচ্ছে। কারা কোথায় সমস্যা সৃষ্টি করছে এবং রাজনৈতিক যে সংশ্লিষ্টতা, বিএনপির কোনো যোগসাজশ আছে কি-না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।”

সোমালিয়ায় বাংলাদেশি জাহাজ ও নাবিকদের উদ্ধারে সরকার সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, “জিম্মিদের উদ্ধারে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সক্রিয়। জিম্মি ২৬ জনের ইনস্যুরেন্সও আছে। দুর্ভিক্ষপীড়িত সোমালিয়ায় আইনশৃঙ্খলার পরিস্থিতি নাজুক। এখানে মুক্তিপণ আদায় মূল লক্ষ্য। আমাদের পক্ষ থেকে যোগাযোগের কোনও ঘাটতি নেই।”

খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার অনুমতি প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, “দাবি তো করতেই পারে। দাবির যৌক্তিকতা কতটুকু সেটাও তো আমাদের ভেবে দেখতে হবে। সরকার এখানে উদাসীন নয়।”

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক দিয়ে মোজাম্মেল হক, আফজাল হোসেন, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মেহের আফরোজ চুমকি, সাধারণ সম্পাদক জাহানারা বেগম, যুব মহিলা লীগের সভাপতি ডেইজি সারোয়ার ও সাধারণ সম্পাদক শারমিন সুলতানা লিলি প্রমুখ।

এজেড নিউজ বিডি ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

মজুতদারদের সঙ্গে বিএনপির যোগসাজশ খতিয়ে দেখা হচ্ছে :কাদের

মজুতদারদের সঙ্গে বিএনপির যোগসাজশ খতিয়ে দেখা হচ্ছে :কাদের
ছবি: সংগৃহীত

বাজার সিন্ডিকেট ও মজুতদারদের সঙ্গে বিএনপির যোগসাজশ খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, “রমজান মাসে সরকারকে বিব্রত করার জন্য বাজারে সিন্ডিকেট থাকতে পারে। খতিয়ে দেখতে হবে, এই ধরনের অপকর্মের সঙ্গে বিএনপির সম্পৃক্ততা আছে কি-না।”

বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মহিলা লীগ ও যুব মহিলা লীগের নেত্রীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, “তারাই (বিএনপি) এসব সিন্ডিকেট করে সরকারকে বিব্রত করার চেষ্টা করছে। নির্বাচিত সরকারের অগ্রযাত্রাকে বাধাগ্রস্ত করতে তারা অপচেষ্টা করতে পারে।”

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, “চলমান বৈশ্বিক যে পরিস্থিতি, অর্থনৈতিক সংকট, সারা বিশ্বে আজকে যে অস্থিরতা চলছে তার প্রভাব প্রতিক্রিয়া বাংলাদেশেও পড়বে। কথা হচ্ছে সরকার বিষয়টিকে কীভাবে মোকাবিলা করছে। শেখ হাসিনা ক্রাইসিস ম্যানেজার হিসেবে যথাযথ দায়িত্ব পালন করছেন। দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণেও তিনি বিভিন্নভাবে প্রয়াস অব্যাহত রেখেছেন।”

সিঙ্গাপুরে রুটিন হেলথ চেকআপে গিয়ে দেখা নিজের অভিজ্ঞতার তুলে ধরে তিনি বলেন, “সেখানে (সিঙ্গাপুর) জিনিসপত্রের দাম দুই থেকে তিন গুণ বেড়েছে। আমাদের দেশে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চলছে। এখানে সরকার নিষ্ক্রিয় নেই। প্রধানমন্ত্রী সারাক্ষণ সংকট মোকাবিলায় সময় দিচ্ছেন। আমাদের এখানে কোনো অবহেলা নেই।”

মজুতদার ও সিন্ডিকেট নিয়ে মন্ত্রী বলেন, “যারা মজুতদার, তাদের খুঁজে বের করা হচ্ছে। কারা কোথায় সমস্যা সৃষ্টি করছে এবং রাজনৈতিক যে সংশ্লিষ্টতা, বিএনপির কোনো যোগসাজশ আছে কি-না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।”

সোমালিয়ায় বাংলাদেশি জাহাজ ও নাবিকদের উদ্ধারে সরকার সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, “জিম্মিদের উদ্ধারে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সক্রিয়। জিম্মি ২৬ জনের ইনস্যুরেন্সও আছে। দুর্ভিক্ষপীড়িত সোমালিয়ায় আইনশৃঙ্খলার পরিস্থিতি নাজুক। এখানে মুক্তিপণ আদায় মূল লক্ষ্য। আমাদের পক্ষ থেকে যোগাযোগের কোনও ঘাটতি নেই।”

খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার অনুমতি প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, “দাবি তো করতেই পারে। দাবির যৌক্তিকতা কতটুকু সেটাও তো আমাদের ভেবে দেখতে হবে। সরকার এখানে উদাসীন নয়।”

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক দিয়ে মোজাম্মেল হক, আফজাল হোসেন, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মেহের আফরোজ চুমকি, সাধারণ সম্পাদক জাহানারা বেগম, যুব মহিলা লীগের সভাপতি ডেইজি সারোয়ার ও সাধারণ সম্পাদক শারমিন সুলতানা লিলি প্রমুখ।

এজেড নিউজ বিডি ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Download
ঠিকানা: মনসুরাবাদ হাউজিং, ঢাকা-১২০৭ এজেড মাল্টিমিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।