অর্থাভাবে জরিমানাও দিতে পারছেন না ট্রাম্প

আন্তর্জাতিক ডেস্ক এজেড নিউজ বিডি, ঢাকা
অর্থাভাবে জরিমানাও দিতে পারছেন না ট্রাম্প
ছবি: সংগৃহীত

জরিমানার অর্থ পরিশোধ করতে গিয়ে বিপাকে পড়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। নিউইয়র্কে হওয়া একটি জালিয়াতির মামলায় ট্রাম্পকে মোটা অঙ্কের যে জরিমানা করা হয়েছে তা তিনি পরিশোধ করতে পারছেন না। এমনকি তার হয়ে ৪৬ কোটি ৪০ লাখ মার্কিন ডলার পরিশোধ করার দায়িত্ব নেবে এমন কোনো বেসরকারি বিমা কোম্পানিও খুঁজে পাচ্ছেন না আইনজীবীরা।

সোমবারের (২৫ মার্চ) মধ্যে জরিমানার গ্যারান্টি হিসেবে ওই অর্থ আদালতে জমা দিতে না পারলে সম্পত্তির একাংশ হারাতে পারেন ডোনাল্ড ট্রাম্প৷

আগামী নভেম্বরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দৌড়ে রিপাবলিকান দলের প্রার্থী ট্রাম্প এগিয়ে আছেন বলে শোনা যাচ্ছে। তবে নিজের প্রচারাভিযানের জন্য যথেষ্ট অর্থ সংগ্রহ করতে পারছেন না তিনি৷ তার ওপর একাধিক মামলায় জর্জরিত প্রার্থী হিসেবে তাকে বিশাল অঙ্কের জরিমানা দিতে হচ্ছে৷

নিজের সম্পদের মূল্য নিয়ে মিথ্যাচার করার অভিযোগে গত ফেব্রুয়ারিতে নিউইয়র্কের একটি আদালত ট্রাম্পকে দোষী সাব্যস্ত করে প্রায় সাড়ে ৩৫ কোটি ডলার জরিমানা করেন। যা সুদে-আসলে মিলে প্রায় ৪৬ কোটি ৪০ লাখ ডলারে গিয়ে দাঁড়িয়েছে।

ফেব্রুয়ারিতে আদালতের দেওয়া ওই রায়ের বিরুদ্ধে ট্রাম্প আপিল করার ঘোষণা দিয়েছেন। কিন্তু আপিল শুনানি শুরু হওয়ার আগে ট্রাম্পকে জরিমানার পুরো অর্থ নগদে বা বন্ড আকারে আদালতে জমা করতে হবে। ২৫ মার্চের মধ্যে যদি তিনি জরিমানার অর্থ পরিশোধ করতে ব্যর্থ হন তবে নিউইয়র্কের অ্যাটর্নি জেনারেল তার আবাসন ব্যবসার সম্পদ জব্দ করতে পারবে।

ট্রাম্পের আইনজীবীরা প্রায় ৩০টি বিমা ও বন্ড কোম্পানির সঙ্গে যোগাযোগ করেও প্রয়োজনীয় অঙ্কের বন্ড আদায় করতে পারছেন না৷ ট্রাম্পের সম্পত্তি বন্ধক রেখে তারা সেই ঝুঁকি নিতে প্রস্তুত নয়৷

ট্রাম্প নিজে আদালতের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের অভিযোগ করছেন৷ তাকে শেষ পর্যন্ত বাধ্য হয়ে পানির দামে সম্পত্তি বন্ধক বা বিক্রি করতে হবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন প্রাক্তন ফেডারেল কৌঁসুলি অ্যান্ড্রু ওয়াইসম্যান৷ এমনকি রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে জয় হলেও সেই সম্পত্তি হাতছাড়া হয়ে যাবে৷

ডোনাল্ড ট্রাম্প আরো ৯১টি মামলায় জর্জরিত হলেও দমে যেতে প্রস্তুত নন৷ সংকট থেকে রাজনৈতিক ফায়দা তুলতে তিনি সমর্থকদের সহানুভূতি আদায়ের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন৷ আসন্ন নির্বাচনে তার পথে বাধা সৃষ্টি করতেই এত মামলা করা হচ্ছে বলে তিনি দাবি করছেন৷ মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের বিরুদ্ধেও তিনি অভিযোগ করে চলেছেন৷

এজেড নিউজ বিডি ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

অর্থাভাবে জরিমানাও দিতে পারছেন না ট্রাম্প

অর্থাভাবে জরিমানাও দিতে পারছেন না ট্রাম্প
ছবি: সংগৃহীত

জরিমানার অর্থ পরিশোধ করতে গিয়ে বিপাকে পড়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। নিউইয়র্কে হওয়া একটি জালিয়াতির মামলায় ট্রাম্পকে মোটা অঙ্কের যে জরিমানা করা হয়েছে তা তিনি পরিশোধ করতে পারছেন না। এমনকি তার হয়ে ৪৬ কোটি ৪০ লাখ মার্কিন ডলার পরিশোধ করার দায়িত্ব নেবে এমন কোনো বেসরকারি বিমা কোম্পানিও খুঁজে পাচ্ছেন না আইনজীবীরা।

সোমবারের (২৫ মার্চ) মধ্যে জরিমানার গ্যারান্টি হিসেবে ওই অর্থ আদালতে জমা দিতে না পারলে সম্পত্তির একাংশ হারাতে পারেন ডোনাল্ড ট্রাম্প৷

আগামী নভেম্বরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দৌড়ে রিপাবলিকান দলের প্রার্থী ট্রাম্প এগিয়ে আছেন বলে শোনা যাচ্ছে। তবে নিজের প্রচারাভিযানের জন্য যথেষ্ট অর্থ সংগ্রহ করতে পারছেন না তিনি৷ তার ওপর একাধিক মামলায় জর্জরিত প্রার্থী হিসেবে তাকে বিশাল অঙ্কের জরিমানা দিতে হচ্ছে৷

নিজের সম্পদের মূল্য নিয়ে মিথ্যাচার করার অভিযোগে গত ফেব্রুয়ারিতে নিউইয়র্কের একটি আদালত ট্রাম্পকে দোষী সাব্যস্ত করে প্রায় সাড়ে ৩৫ কোটি ডলার জরিমানা করেন। যা সুদে-আসলে মিলে প্রায় ৪৬ কোটি ৪০ লাখ ডলারে গিয়ে দাঁড়িয়েছে।

ফেব্রুয়ারিতে আদালতের দেওয়া ওই রায়ের বিরুদ্ধে ট্রাম্প আপিল করার ঘোষণা দিয়েছেন। কিন্তু আপিল শুনানি শুরু হওয়ার আগে ট্রাম্পকে জরিমানার পুরো অর্থ নগদে বা বন্ড আকারে আদালতে জমা করতে হবে। ২৫ মার্চের মধ্যে যদি তিনি জরিমানার অর্থ পরিশোধ করতে ব্যর্থ হন তবে নিউইয়র্কের অ্যাটর্নি জেনারেল তার আবাসন ব্যবসার সম্পদ জব্দ করতে পারবে।

ট্রাম্পের আইনজীবীরা প্রায় ৩০টি বিমা ও বন্ড কোম্পানির সঙ্গে যোগাযোগ করেও প্রয়োজনীয় অঙ্কের বন্ড আদায় করতে পারছেন না৷ ট্রাম্পের সম্পত্তি বন্ধক রেখে তারা সেই ঝুঁকি নিতে প্রস্তুত নয়৷

ট্রাম্প নিজে আদালতের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের অভিযোগ করছেন৷ তাকে শেষ পর্যন্ত বাধ্য হয়ে পানির দামে সম্পত্তি বন্ধক বা বিক্রি করতে হবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন প্রাক্তন ফেডারেল কৌঁসুলি অ্যান্ড্রু ওয়াইসম্যান৷ এমনকি রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে জয় হলেও সেই সম্পত্তি হাতছাড়া হয়ে যাবে৷

ডোনাল্ড ট্রাম্প আরো ৯১টি মামলায় জর্জরিত হলেও দমে যেতে প্রস্তুত নন৷ সংকট থেকে রাজনৈতিক ফায়দা তুলতে তিনি সমর্থকদের সহানুভূতি আদায়ের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন৷ আসন্ন নির্বাচনে তার পথে বাধা সৃষ্টি করতেই এত মামলা করা হচ্ছে বলে তিনি দাবি করছেন৷ মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের বিরুদ্ধেও তিনি অভিযোগ করে চলেছেন৷

এজেড নিউজ বিডি ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Download
ঠিকানা: মনসুরাবাদ হাউজিং, ঢাকা-১২০৭ এজেড মাল্টিমিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।