ইসরায়েল-হিজবুল্লাহ সংঘাত চরমে, নিহত ১৭

আন্তর্জাতিক ডেস্ক এজেড নিউজ বিডি, ঢাকা
ইসরায়েল-হিজবুল্লাহ সংঘাত চরমে, নিহত ১৭
ছবি: সংগৃহীত

লেবাননের দক্ষিণাঞ্চলের সীমান্ত এলাকায় হিজবুল্লাহর সঙ্গে ইসরায়েলি সেনাদের সংঘাতের ঘটনা ঘটেছে। এতে ১৭ জনের নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

দক্ষিণ লেবাননের গ্রামে রাতের আঁধারে ইসরায়েলি হামলায় সাতজন মারা যান। এরপর বুধবার (২৭ মার্চ) সীমান্তবর্তী ইসরায়েলের শহরে একের পর এক রকেট ছোড়ে হিজবুল্লাহ। এতে একজন মারা গেছেন। সন্ধ্যায় ইসরায়েল লেবাননের আরও দুইটি গ্রামে বোমা হামলা করে এবং এতে ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।

গাজায় ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাসের সঙ্গে ইসরায়েলের লড়াই চলছে। হামাসের ঘনিষ্ঠ মিত্র হিসেবে পরিচিত লেবাননের শিয়াপন্থী হিজবুল্লাহ। ইরান এ সংগঠনকে সহায়তা দিয়ে থাকে বলে অভিযোগ পশ্চিমাদের।

মূলত গত বছরের অক্টোবর থেকে ইসরায়েল এবং হিজবুল্লাহর মধ্যে সীমান্ত যুদ্ধ ধীরে ধীরে বেড়েছে এবং লেবাননে কয়েক ডজন বেসামরিক লোক নিহত হয়েছেন। এর আগে, চলতি মার্চ মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে লেবাননে প্রাণঘাতী হামলা চালায় ইসরায়েল। এতে অন্তঃসত্ত্বা নারীসহ ৫ জন নিহত হয়েছিলেন। নিহতদের মধ্যে একই পরিবারের সদস্য ছিলেন চারজন।

লেবাননের গণমাধ্যম জানিয়েছে, বুধবার ভোরে আল-জামাত আল-ইসলামিয়ার একটি মেডিকেল সেন্টারের ওপর আক্রমণ চালায় ইসরায়েল।

লেবাননের সরকারি বার্তা সংস্থা এনএনএ জানিয়েছে, ইসরায়েলের যুদ্ধবিমান থেকে এই আক্রমণ চালানো হয়েছে। এতে সাতজন চিকিৎসাকর্মীর মৃত্যু হয়েছে। চারজন বেসামরিক মানুষ আহত হয়েছেন।

ইসরায়েল দাবি করেছে, তারা লেবাননে জঙ্গিদের মোকাবিলা করছে। তারা জঙ্গিদের লক্ষ্য করে আক্রমণ করেছে। তাতে একজন প্রধান জঙ্গি মারা গেছে।

ইসরায়েলি সেনাবাহিনী বলেছে, জঙ্গি গোষ্ঠী আল-জামাত আল-ইসলামিয়া গোষ্ঠীর একজন প্রধান জঙ্গিকে লক্ষ্য করে আক্রমণ করা হয়েছিল। ওই জঙ্গি ইসরায়েলের বিরুদ্ধে আক্রমণের নেপথ্যে ছিল। সেই জঙ্গি ও তার কিছু সঙ্গী মারা গেছে।

এ হামলার পরিপ্রেক্ষিতে হিজবুল্লাহ ইসরায়েলকে লক্ষ্য করে একের পর এক রকেট ছুড়তে থাকে। এই রকেটগুলো কিরিয়াত শমোনা শহরের বাড়িতে গিয়ে পড়ে। এতে একজন নিহত হন।

লেবাননের সরকারি বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, ইসরায়েল সূর্যাস্তের পর একটি গ্রামে হামলা করেছে। সেখানে দুইজন চিকিৎসাকর্মীসহ ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে।

এছাড়াও ইসরায়েল উপকূলবর্তী শহর নাকাউরাতেও হামলা করে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। সেখানে প্যারামেডিক গ্রুপ ইসলামিক রিসালা স্কাউট অ্যাসোসিয়েশনের ওপর হামলা করা হয় এবং তিনজন মারা যান।

ইসরায়েল দাবি করেছে, দুইটি জায়গায় তারা জঙ্গি ঘাঁটিতে আক্রমণ করেছে।

হিজবুল্লাহ জানিয়েছে, সবমিলিয়ে তাদের ২৪০ জন যোদ্ধা মারা গেছেন। দুই তরফেই বেসামরিক মানুষ মারা গেছেন। কয়েক লাখ মানুষ এলাকা ছেড়ে চলে গেছেন।

এজেড নিউজ বিডি ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

ইসরায়েল-হিজবুল্লাহ সংঘাত চরমে, নিহত ১৭

ইসরায়েল-হিজবুল্লাহ সংঘাত চরমে, নিহত ১৭
ছবি: সংগৃহীত

লেবাননের দক্ষিণাঞ্চলের সীমান্ত এলাকায় হিজবুল্লাহর সঙ্গে ইসরায়েলি সেনাদের সংঘাতের ঘটনা ঘটেছে। এতে ১৭ জনের নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

দক্ষিণ লেবাননের গ্রামে রাতের আঁধারে ইসরায়েলি হামলায় সাতজন মারা যান। এরপর বুধবার (২৭ মার্চ) সীমান্তবর্তী ইসরায়েলের শহরে একের পর এক রকেট ছোড়ে হিজবুল্লাহ। এতে একজন মারা গেছেন। সন্ধ্যায় ইসরায়েল লেবাননের আরও দুইটি গ্রামে বোমা হামলা করে এবং এতে ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।

গাজায় ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাসের সঙ্গে ইসরায়েলের লড়াই চলছে। হামাসের ঘনিষ্ঠ মিত্র হিসেবে পরিচিত লেবাননের শিয়াপন্থী হিজবুল্লাহ। ইরান এ সংগঠনকে সহায়তা দিয়ে থাকে বলে অভিযোগ পশ্চিমাদের।

মূলত গত বছরের অক্টোবর থেকে ইসরায়েল এবং হিজবুল্লাহর মধ্যে সীমান্ত যুদ্ধ ধীরে ধীরে বেড়েছে এবং লেবাননে কয়েক ডজন বেসামরিক লোক নিহত হয়েছেন। এর আগে, চলতি মার্চ মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে লেবাননে প্রাণঘাতী হামলা চালায় ইসরায়েল। এতে অন্তঃসত্ত্বা নারীসহ ৫ জন নিহত হয়েছিলেন। নিহতদের মধ্যে একই পরিবারের সদস্য ছিলেন চারজন।

লেবাননের গণমাধ্যম জানিয়েছে, বুধবার ভোরে আল-জামাত আল-ইসলামিয়ার একটি মেডিকেল সেন্টারের ওপর আক্রমণ চালায় ইসরায়েল।

লেবাননের সরকারি বার্তা সংস্থা এনএনএ জানিয়েছে, ইসরায়েলের যুদ্ধবিমান থেকে এই আক্রমণ চালানো হয়েছে। এতে সাতজন চিকিৎসাকর্মীর মৃত্যু হয়েছে। চারজন বেসামরিক মানুষ আহত হয়েছেন।

ইসরায়েল দাবি করেছে, তারা লেবাননে জঙ্গিদের মোকাবিলা করছে। তারা জঙ্গিদের লক্ষ্য করে আক্রমণ করেছে। তাতে একজন প্রধান জঙ্গি মারা গেছে।

ইসরায়েলি সেনাবাহিনী বলেছে, জঙ্গি গোষ্ঠী আল-জামাত আল-ইসলামিয়া গোষ্ঠীর একজন প্রধান জঙ্গিকে লক্ষ্য করে আক্রমণ করা হয়েছিল। ওই জঙ্গি ইসরায়েলের বিরুদ্ধে আক্রমণের নেপথ্যে ছিল। সেই জঙ্গি ও তার কিছু সঙ্গী মারা গেছে।

এ হামলার পরিপ্রেক্ষিতে হিজবুল্লাহ ইসরায়েলকে লক্ষ্য করে একের পর এক রকেট ছুড়তে থাকে। এই রকেটগুলো কিরিয়াত শমোনা শহরের বাড়িতে গিয়ে পড়ে। এতে একজন নিহত হন।

লেবাননের সরকারি বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, ইসরায়েল সূর্যাস্তের পর একটি গ্রামে হামলা করেছে। সেখানে দুইজন চিকিৎসাকর্মীসহ ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে।

এছাড়াও ইসরায়েল উপকূলবর্তী শহর নাকাউরাতেও হামলা করে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। সেখানে প্যারামেডিক গ্রুপ ইসলামিক রিসালা স্কাউট অ্যাসোসিয়েশনের ওপর হামলা করা হয় এবং তিনজন মারা যান।

ইসরায়েল দাবি করেছে, দুইটি জায়গায় তারা জঙ্গি ঘাঁটিতে আক্রমণ করেছে।

হিজবুল্লাহ জানিয়েছে, সবমিলিয়ে তাদের ২৪০ জন যোদ্ধা মারা গেছেন। দুই তরফেই বেসামরিক মানুষ মারা গেছেন। কয়েক লাখ মানুষ এলাকা ছেড়ে চলে গেছেন।

এজেড নিউজ বিডি ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Download
ঠিকানা: মনসুরাবাদ হাউজিং, ঢাকা-১২০৭ এজেড মাল্টিমিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।