১৩ বছরের অপেক্ষা শেষে শেনজেনভুক্ত হলো রোমানিয়া-বুলগেরিয়া

আন্তর্জাতিক ডেস্ক এজেড নিউজ বিডি, ঢাকা
১৩ বছরের অপেক্ষা শেষে শেনজেনভুক্ত হলো রোমানিয়া-বুলগেরিয়া
ছবি: সংগৃহীত

দীর্ঘ ১৩ বছরের অপেক্ষা শেষে শেনজেন অঞ্চলে আংশিক প্রবেশ ঘটল ইউরোপের দেশ বুলগেরিয়া ও রোমানিয়ার। তবে কেবল সাগর ও আকাশপথেই শেনজেনভুক্ত দেশগুলোর সঙ্গে আপাতত যুক্ত হতে পারছে তারা। অর্থাৎ, এই দু’পথেই দেশ দুটির নাগরিকেরা বিনা ভিসায় শেনজেনভুক্ত অন্য দেশে ভ্রমণ করতে পারবেন। খবর রয়টার্সের।

ইউরোপীয় ইউনিয়নে (ইইউ) যোগদানের ১৩ বছরের বেশি সময় পর রোববার (৩১ মার্চ) আংশিকভাবে হলেও ইইউর অন্য সদস্যদের সঙ্গে ভিসা ছাড়াই শেনজেন এলাকায় যুক্ত হলো বুলগেরিয়া ও রোমানিয়া। ভ্রমণকারীরা এখন সমুদ্র বা আকাশপথে ভ্রমণের সময় ভিসা এবং পাসপোর্টের প্রয়োজন ছাড়াই এ দুটি পূর্ব ইউরোপীয় দেশ এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাকি অংশগুলোর মধ্যে ভ্রমণ করতে পারবেন।

অস্ট্রিয়ার ভেটোর কারণে স্থল পথে এখনো শেনজেনে যুক্ত হতে পারেনি বুলগেরিয়া ও রোমানিয়া। কারণ হিসেবে বলা হয়, স্থলপথে এই দেশগুলো হয়ে সহজে ইউরোপীয় নন এমন অভিবাসীরা ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাকি দেশগুলোতে পৌঁছে যেতে পারবেন।

রোমানিয়া ও বুলগেরিয়া ২০০৭ সাল থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সদস্য। তবে দেশ দুটি এত দিন এই ভিসামুক্ত শেনজেন অঞ্চলে যুক্ত হতে পারেনি।

অভ্যন্তরীণ সীমান্ত নিয়ন্ত্রণ ছাড়াই ৪০ কোটির বেশি মানুষ শেনজেন অঞ্চলে অবাধে চলাচল করতে পারে।

১৯৮৫ সালে শেনজেন অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করা হয়। রোমানিয়া ও বুলগেরিয়া যুক্ত হওয়ায় বর্তমানে শেনজেন অঞ্চলের অন্তর্ভুক্ত দেশের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৯টিতে। এতে ইইউর ২৭ সদস্যের ২৫টি অন্তভুক্ত। ইইউর সদস্য নয়- এমন চারটি দেশ (সুইজারল্যান্ড, নরওয়ে, আইসল্যান্ড ও লিচটেনস্টেইন) শেনজেন অঞ্চলের অন্তভুক্ত।

শেনজেন অঞ্চলে দেশ দুটির আংশিক অন্তর্ভুক্তিকে স্বাগত জানিয়েছে ইউরোপীয় কমিশন। কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডার লেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্স-এ এক পোস্টে বলেন, ‘এটি দুই দেশের জন্যই একটি বড় সাফল্য।’

ইইউর প্রেসিডেন্ট আরো বলেন, ‘এটি এই এলাকার জন্য একটি ঐতিহাসিক মুহূর্ত। অবাধ চলাচলের জন্য বিশ্বের বৃহত্তম এলাকা এটি। আমরা সবাই মিলে আমাদের সমস্ত নাগরিকের জন্য একটি শক্তিশালী, আরও ঐক্যবদ্ধ ইউরোপ তৈরি করছি।’

বুলগেরিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কালিন স্টোয়ানোভ রোববার (৩১ মার্চ) সাংবাদিকদের জানান, চলতি বছরের শেষ নাগাদ বুলগেরিয়া সেনজেন জোনের পূর্ণ সদস্য হতে পারে। যার মানে, সড়ক ও রেলপথে যাতায়াতকারী মানুষ এবং পণ্যগুলোর জন্য সীমান্ত চেক পয়েন্ট সরিয়ে দেওয়া হবে। একই প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন রোমানিয়ার প্রধানমন্ত্রী মার্সেল সিওলাকু।

এজেড নিউজ বিডি ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

১৩ বছরের অপেক্ষা শেষে শেনজেনভুক্ত হলো রোমানিয়া-বুলগেরিয়া

১৩ বছরের অপেক্ষা শেষে শেনজেনভুক্ত হলো রোমানিয়া-বুলগেরিয়া
ছবি: সংগৃহীত

দীর্ঘ ১৩ বছরের অপেক্ষা শেষে শেনজেন অঞ্চলে আংশিক প্রবেশ ঘটল ইউরোপের দেশ বুলগেরিয়া ও রোমানিয়ার। তবে কেবল সাগর ও আকাশপথেই শেনজেনভুক্ত দেশগুলোর সঙ্গে আপাতত যুক্ত হতে পারছে তারা। অর্থাৎ, এই দু’পথেই দেশ দুটির নাগরিকেরা বিনা ভিসায় শেনজেনভুক্ত অন্য দেশে ভ্রমণ করতে পারবেন। খবর রয়টার্সের।

ইউরোপীয় ইউনিয়নে (ইইউ) যোগদানের ১৩ বছরের বেশি সময় পর রোববার (৩১ মার্চ) আংশিকভাবে হলেও ইইউর অন্য সদস্যদের সঙ্গে ভিসা ছাড়াই শেনজেন এলাকায় যুক্ত হলো বুলগেরিয়া ও রোমানিয়া। ভ্রমণকারীরা এখন সমুদ্র বা আকাশপথে ভ্রমণের সময় ভিসা এবং পাসপোর্টের প্রয়োজন ছাড়াই এ দুটি পূর্ব ইউরোপীয় দেশ এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাকি অংশগুলোর মধ্যে ভ্রমণ করতে পারবেন।

অস্ট্রিয়ার ভেটোর কারণে স্থল পথে এখনো শেনজেনে যুক্ত হতে পারেনি বুলগেরিয়া ও রোমানিয়া। কারণ হিসেবে বলা হয়, স্থলপথে এই দেশগুলো হয়ে সহজে ইউরোপীয় নন এমন অভিবাসীরা ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাকি দেশগুলোতে পৌঁছে যেতে পারবেন।

রোমানিয়া ও বুলগেরিয়া ২০০৭ সাল থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সদস্য। তবে দেশ দুটি এত দিন এই ভিসামুক্ত শেনজেন অঞ্চলে যুক্ত হতে পারেনি।

অভ্যন্তরীণ সীমান্ত নিয়ন্ত্রণ ছাড়াই ৪০ কোটির বেশি মানুষ শেনজেন অঞ্চলে অবাধে চলাচল করতে পারে।

১৯৮৫ সালে শেনজেন অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করা হয়। রোমানিয়া ও বুলগেরিয়া যুক্ত হওয়ায় বর্তমানে শেনজেন অঞ্চলের অন্তর্ভুক্ত দেশের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৯টিতে। এতে ইইউর ২৭ সদস্যের ২৫টি অন্তভুক্ত। ইইউর সদস্য নয়- এমন চারটি দেশ (সুইজারল্যান্ড, নরওয়ে, আইসল্যান্ড ও লিচটেনস্টেইন) শেনজেন অঞ্চলের অন্তভুক্ত।

শেনজেন অঞ্চলে দেশ দুটির আংশিক অন্তর্ভুক্তিকে স্বাগত জানিয়েছে ইউরোপীয় কমিশন। কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডার লেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্স-এ এক পোস্টে বলেন, ‘এটি দুই দেশের জন্যই একটি বড় সাফল্য।’

ইইউর প্রেসিডেন্ট আরো বলেন, ‘এটি এই এলাকার জন্য একটি ঐতিহাসিক মুহূর্ত। অবাধ চলাচলের জন্য বিশ্বের বৃহত্তম এলাকা এটি। আমরা সবাই মিলে আমাদের সমস্ত নাগরিকের জন্য একটি শক্তিশালী, আরও ঐক্যবদ্ধ ইউরোপ তৈরি করছি।’

বুলগেরিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কালিন স্টোয়ানোভ রোববার (৩১ মার্চ) সাংবাদিকদের জানান, চলতি বছরের শেষ নাগাদ বুলগেরিয়া সেনজেন জোনের পূর্ণ সদস্য হতে পারে। যার মানে, সড়ক ও রেলপথে যাতায়াতকারী মানুষ এবং পণ্যগুলোর জন্য সীমান্ত চেক পয়েন্ট সরিয়ে দেওয়া হবে। একই প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন রোমানিয়ার প্রধানমন্ত্রী মার্সেল সিওলাকু।

এজেড নিউজ বিডি ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Download
ঠিকানা: মনসুরাবাদ হাউজিং, ঢাকা-১২০৭ এজেড মাল্টিমিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।