ভূমিকম্পে কাঁপলো জাপান, সুনামির আশঙ্কা নেই

আন্তর্জাতিক ডেস্ক এজেড নিউজ বিডি, ঢাকা
ভূমিকম্পে কাঁপলো জাপান, সুনামির আশঙ্কা নেই
ছবি: সংগৃহীত

ফের ভূমিকম্পে কাঁপলো জাপান। বৃহস্পতিবার (২১ মার্চ) স্থানীয় সময় সকাল ৯টার দিকে টোকিওর উত্তরে এই ভূমিকম্প হয়। কম্পনের মাত্রা ছিল পাঁচ দশমিক তিন। তবে এর জন্য কোনো সুনামি সতর্কতা জারি করা হয়নি। জাপানি বার্তাসংস্থা এনএইচকে এমন খবর প্রকাশ করেছে।

ওই খবরে মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থার (ইউএসজিএস) বরাত দিয়ে বলা হয়, টোকিওর উত্তরে কাসুকাবে অঞ্চল থেকে চার কিলোমিটার দূরে ছিল ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল। কাসুকাবে শহরে ২ লাখ ৩০ হাজার মানুষ বাস করেন।

এনএইচকে বলছে, ভূপৃষ্ঠ থেকে ৫০ কিলোমিটার গভীরে ছিল ভূমিকম্পের কেন্দ্র। কম্পন মাপার একটি নিজস্ব স্কেল রয়েছে জাপানের। শূন্য থেকে সাত পর্যন্ত সেই স্কেলে এ দিনের কম্পনের মাত্রা ছিল পাঁচ। অর্থাৎ, প্রবল কম্পন অনুভূত হয়েছে। ভূমিকম্পের পরপরই টোকিও এবং এর আশপাশের এলাকাগুলোতে সতর্কতা সাইরেন বেজে ওঠে।

এ ঘটনায় বেশ কিছু বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। ভূমিকম্পের জেরে বুলেট ট্রেন বন্ধ করে দেওয়া হয়। টোকিও থেকে ফুকুশিমার রাস্তায় আলো নেই। তাই ট্রেন বন্ধ করে দিতে হয়েছে।

পরমাণু চুল্লির কাজও সাময়িক সময়ের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়। পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্রে কোথাও কোনো সমস্যা হয়েছে কি না, তা খতিয়ে দেখা হয়েছে। বিদ্যুৎকেন্দ্রটি কম্পনস্থলের খুব কাছে।

জাপান অত্যন্ত ভূমিকম্পপ্রবণ একটি দেশ। প্রতি বছর সেখানে অন্তত ১ হাজার ৮০০টি ভূমিকম্প হয়, যা গোটা পৃথিবীর ১৮ প্রায় শতাংশ। দেশটির ঘরবাড়িগুলোও সেই মতো করে তৈরি করা হয়। এ কারণে ক্ষয়ক্ষতিও হয় কম।

এজেড নিউজ বিডি ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

ভূমিকম্পে কাঁপলো জাপান, সুনামির আশঙ্কা নেই

ভূমিকম্পে কাঁপলো জাপান, সুনামির আশঙ্কা নেই
ছবি: সংগৃহীত

ফের ভূমিকম্পে কাঁপলো জাপান। বৃহস্পতিবার (২১ মার্চ) স্থানীয় সময় সকাল ৯টার দিকে টোকিওর উত্তরে এই ভূমিকম্প হয়। কম্পনের মাত্রা ছিল পাঁচ দশমিক তিন। তবে এর জন্য কোনো সুনামি সতর্কতা জারি করা হয়নি। জাপানি বার্তাসংস্থা এনএইচকে এমন খবর প্রকাশ করেছে।

ওই খবরে মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থার (ইউএসজিএস) বরাত দিয়ে বলা হয়, টোকিওর উত্তরে কাসুকাবে অঞ্চল থেকে চার কিলোমিটার দূরে ছিল ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল। কাসুকাবে শহরে ২ লাখ ৩০ হাজার মানুষ বাস করেন।

এনএইচকে বলছে, ভূপৃষ্ঠ থেকে ৫০ কিলোমিটার গভীরে ছিল ভূমিকম্পের কেন্দ্র। কম্পন মাপার একটি নিজস্ব স্কেল রয়েছে জাপানের। শূন্য থেকে সাত পর্যন্ত সেই স্কেলে এ দিনের কম্পনের মাত্রা ছিল পাঁচ। অর্থাৎ, প্রবল কম্পন অনুভূত হয়েছে। ভূমিকম্পের পরপরই টোকিও এবং এর আশপাশের এলাকাগুলোতে সতর্কতা সাইরেন বেজে ওঠে।

এ ঘটনায় বেশ কিছু বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। ভূমিকম্পের জেরে বুলেট ট্রেন বন্ধ করে দেওয়া হয়। টোকিও থেকে ফুকুশিমার রাস্তায় আলো নেই। তাই ট্রেন বন্ধ করে দিতে হয়েছে।

পরমাণু চুল্লির কাজও সাময়িক সময়ের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়। পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্রে কোথাও কোনো সমস্যা হয়েছে কি না, তা খতিয়ে দেখা হয়েছে। বিদ্যুৎকেন্দ্রটি কম্পনস্থলের খুব কাছে।

জাপান অত্যন্ত ভূমিকম্পপ্রবণ একটি দেশ। প্রতি বছর সেখানে অন্তত ১ হাজার ৮০০টি ভূমিকম্প হয়, যা গোটা পৃথিবীর ১৮ প্রায় শতাংশ। দেশটির ঘরবাড়িগুলোও সেই মতো করে তৈরি করা হয়। এ কারণে ক্ষয়ক্ষতিও হয় কম।

এজেড নিউজ বিডি ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Download
ঠিকানা: মনসুরাবাদ হাউজিং, ঢাকা-১২০৭ এজেড মাল্টিমিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।