সেঞ্চুরির আশা জাগিয়ে থামলেন তানজীদ, চাপে বাংলাদেশ

স্পোর্টস ডেস্ক এজেড নিউজ বিডি, ঢাকা
সেঞ্চুরির আশা জাগিয়ে থামলেন তানজীদ, চাপে বাংলাদেশ
ছবি: সংগৃহীত

আগের ওভারেই হাঁকিয়েছেন ছক্কা। সে কারণেই কিনা আত্মবিশ্বাসী ছিলেন তানজীদ। পরের ওভারে হাসারাঙ্গার ওপর চড়াও হতে গিয়েই বিপদ। ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে ৮১ বলে ৮৪ রান করে লং অনে ধরা পড়েছেন তানজীদ। ১৩০ রানে পঞ্চম উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ। মুশফিকের সঙ্গী শেষ স্বীকৃত ব্যাটসম্যান মেহেদী হাসান মিরাজ।

তাওহীদের পর মাহমুদউল্লাহর বিদায়

বেশ ভালো একটা জুটি গড়েছিলেন তানজীদ হাসান তামিম ও তাওহীদ হৃদয়। তবে বেশিদূর আগাতে পারলেন না তাওহীদ। সেট হয়েও বিদায় নিলেন ২২ রানে। তার বিদায়ের পর উইকেটে এসে তানজীদকে সঙ্গ দিতে পারলেন না অভিজ্ঞ মাহমুদউল্লাহও। কুমারার অফ স্টাম্পের বাইরের বল খোঁচা দিয়ে ৪ বলে ১ রানেই বিদায় নেন তিনি।৪ উইকেট হারিয়ে এবার চাপে বাংলাদেশ।

তানজীদ-তাওহীদের জুটিতে বাংলাদেশের একশ পার

তানজীদ হাসান তামিম ও তাওহীদ হৃদয়ের ব্যাটিংয়ে ভালোই এগোচ্ছিল বাংলাদেশ। তবে আলগা শট খেলতে গিয়ে ক্যাচ তুলে বিদায় নিয়েছেন তাওহীদ।এর আগে একশ পার করেছে বাংলাদেশ।পার্ট টাইমার আসালাঙ্কাকে স্লগ করে চার মেরেছেন তানজিদ। ওই চারে বাংলাদেশ পেরিয়ে গেছে ১০০ রান। ২১.৪ ওভারে বাংলাদেশের রান ৩ উইকেটে ১০৫।

তানজিদের ফিফটিতে এগোচ্ছে বাংলাদেশ

পনেরোতম ওয়ানডে খেলতে নেমে দ্বিতীয় ফিফটির দেখা পেলেন তানজিদ হাসান তামিম। আজ চট্টগ্রামে সৌম্য সরকারের ইনজুরির কারণে বদলি হিসেবে (কনকাসন সাব) নামানো হয় তানজিদ হাসান তামিমকে। শুরু থেকেই বেশ আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করেন তিনি। পরপর দুই সঙ্গী (বিজয় ও শান্ত) হারালেও তানজিদ খেলেন দেখে-শুনে। এরপর তুলে নেন ওয়ানডে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ফিফটি। ৫১ বল খেলে ৬টি চার ও ২ ছক্কায় ফিফটি পূর্ণ করেন তিনি। তার ফিফটিতে ভর করে বাংলাদেশের ইনিংসে এগিয়ে যাচ্ছে। সঙ্গে আছেন তাওহীদ হৃদয়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ১৭ ওভারে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২ উইকেটে ৭৯ রান।

বিজয়ের পর দ্রুতই ফিরলেন শান্ত:

বিজয়ের পর দ্রুতই ফিরলেন অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্তও। দলীয় ৫৬ রানের মাথায় লাহিরু কুমারার বলে উইকেটের পেছনে কুসল মেন্ডিসের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন শান্ত। ৫ বল খেলে ১ রান আসে তার ব্যাট থেকে।

লিটনের বদলে এনামুলও ব্যর্থ:

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম দুই ওয়ানডেতে ডাক মারেন লিটন দাস। এরপর বাদ পড়েন দল থেকে। তার পরিবর্তে আজ সোমবার তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে সুযোগ দেওয়া হয় এনামুল হক বিজয়কে। তিনিও অবশ্য ব্যর্থ হয়েছেন। উদ্বোধনী জুটিতে ব্যাট করতে নেমে ২২ বল খেলে ১ চারে ১২ রান করে লাহিরু কুমারার বলে এক্সট্রা কাভারে ফার্নান্দোর হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন। দলীয় রান তখন ছিল ৮.২ ওভারে ১ উইকেটে ৫০।

লিয়ানাগের মেইডেন সেঞ্চুরিতে শ্রীলঙ্কার লড়াকু পুঁজি:

বাংলাদেশের বিপক্ষে চট্টগ্রামে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরুতে সুবিধা করতে পারেনি শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশের বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে শ্রীলঙ্কা উইকেট হারাতে থাকে নিয়মিত বিরতিতে। ১৫৪ রান তুলতেই হারিয়ে বসে ৭ উইকেট।

কিন্তু একপ্রান্ত আগলে ব্যাটিং করে যান জানিথ লিয়ানাগে। তিনি ১০২ বল খেলে ১১টি চার ও ২ ছক্কায় ক্যারিয়ারের মেইডেন সেঞ্চুরি তুলে নিয়ে অপরাজিত থাকেন। নবম ওয়ানডেতে পেলেন প্রথম শতকের দেখা। তার শতরানের ইনিংসে ভর করে ৫০ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২৩৫ রান সংগ্রহ করেছে শ্রীলঙ্কা। জিততে এবং সিরিজ জয় নিশ্চিত করতে বাংলাদেশকে করতে হবে ২৩৬ রান।

লিয়ানাগে ছাড়া চারিথ আসালঙ্কা ৫ চারে ৩৭, কুসল মেন্ডিস ৩ চারে ২৯ ও মহেশ থিকশানা করেন ১৫ রান।

বল হাতে বাংলাদেশের তাসকিন আহমেদ ১০ ওভারে ১ মেডেনসহ ৪২ রান দিয়ে ৩টি উইকেট নেন। মোস্তাফিজুর রহমান ৯ ওভারে ১ মেডেনসহ ৩৯ রান দিয়ে নেন ২টি উইকটে। মেহেদী হাসান মিরাজ ১০ ওভারে ১ মেডেনসহ ৩৮ রান দিয়ে নেন ২টি উইকেট। ১টি করে উইকেট নেন রিশাদ হোসেন ও সৌম্য সরকার।

সৌম্য ভাঙলেন শ্রীলঙ্কার প্রতিরোধ:

লিয়ানাগে-থিকশানার জুটিটি বাংলাদেশের মাথা ব্যাথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। মোস্তাফিজুর রহমান ইনজুরি আক্রান্ত হয়ে মাঠ ছাড়লে সৌম্য আসেন তার কোটার বোলিং করতে। এসেই প্রথম বলে ভাঙেন অষ্টম উইকেট জুটি। তার বলে ডিপ মিডউইকেটে উড়িয়ে মারতে গিয়ে বদিল ফিল্ডার তানজিম হাসান সাকিবের হাতে ধরা পড়েন থিকশানা। ৪০ বল খেলে কোনো বাউন্ডারি ছাড়া ১৫ রান করেন তিনি। তবে সেঞ্চুরির পথে আছেন লিয়ানাগে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তিনি ৯০ রানে ব্যাট করছেন।

লিয়ানাগে-থিকশানায় শ্রীলঙ্কার প্রতিরোধ:

১৫৪ রানেই ৭ উইকেট হারিয়ে বসা শ্রীলঙ্কা অষ্টম উইকেটে প্রতিরোধ গড়েছে। জানিথ লিয়ানাগে ও মহেশ থিকশাানা গড়েছেন এই প্রতিরোধ। অষ্ট উইকেট জুটিতে তারা দুজন ৫৯ রান সংগ্রহ করেছেন। তাতে শ্রীলঙ্কার দলীয় সংগ্রহ ২০০ পেরিয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ৪৭ ওভারে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ২১৪ রান। লিয়ানাগে ৮৪ ও থিকশানা ১৫ রানে ব্যাট করছেন।

আবারও মিরাজের আঘাত, এবার ফেরালেন হাসারাঙ্গাকে:

শ্রীলঙ্কা শিবিরে আবারও মিরাজের আঘাত। এবার তিনি ফিরিয়েছেন ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গাকে। দলীয় ১৫৪ রানের মাথায় ৩৫তম ওভারের প্রথম বলেই হাসারাঙ্গাকে বোল্ড করেন মিরাজ। ৮ বলে ১ ছক্কায় ১১ রান করে যান তিনি।

মিরাজের ঘূর্ণিতে ষষ্ঠ উইকেট হারালো শ্রীলঙ্কা:

১৩৭ রানে যেতেই ষষ্ঠ উইকেট হারালো শ্রীলঙ্কা। এবার মেহেদী হাসান মিরাজের ঘূর্ণিতে পরাস্ত হলেন দুনিথ বেলালাগে। মিরাজের বলে কাউ কর্নার দিয়ে স্লগ সুইপ শট খেলতে গিয়ে টাইমিংয়ে গড়বড় হওয়ায় মিড উইকেটে সৌম্য সরকারের হাতে ধরা পড়েন বেলালাগে। ১৮ বল খেলে ১ রান আসে তার ব্যাট থেকে।

মোস্তাফিজের দ্বিতীয় শিকার আসালঙ্কা:

দলীয় ১১৭ রানের মাথায় পঞ্চম উইকেট হারালো শ্রীলঙ্কা। মোস্তাফিজুর রহমানের বলে উইকেটের পেছনে মুশফিকুর রহিমের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হন চারিথ আসালঙ্কা। ৪৬ বল খেলে ৫ চারে ৩৭ রান করে যান তিনি।

এবার প্রথম বলে রিশাদের উইকেট:

মোস্তাফিজ বোলিংয়ে এসেই উইকেটের দেখা পেয়েছিলেন। এবার ইনিংসের ১৮তম ওভারে এসে প্রথম বলেই কুসলকে ফেরান রিশাদ হোসেন। রিশাদের টার্ন করা বলে অফে খেলতে গিয়ে খোঁচা দেন কুসল। ৫১ বলে ২৯ রান আসে তার ব্যাট থেকে। তার আউটে ভাঙে ৩৩ রানের জুটি। ক্রিজে আসালঙ্কার সঙ্গী লিয়ানাগে। ১৮ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৮০।

বোলিংয়ে এসেই মোস্তাফিজের উইকেট:

প্রথম দুই ওয়ানডেতে সুযোগ পাননি। তরুণ পেসার তানজীম হাসান সাকিব ইনজুরিতে ছিটকে যাওয়ায় সুযোগ মেলে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে। মোস্তাফিজ এই ম্যাচে প্রথম পাওয়ার প্লে’র পর বোলিংয়ের সুযোগ পান। দ্বিতীয় বলেই ফেরান সাদিরা সামারাবিক্রমাকে। লেন্থ বল ডিফেন্ড করতে যেয়ে খোঁচা দিয়ে বসেন সামারাবিক্রমা। ১৫ রানে ২ উইকেট হারানোর পর কুশল মেন্ডিসের সঙ্গে প্রতিরোধ গড়েন সামারাবিক্রমা। দুজনে পাওয়ার প্লে শেষ করেন বিপদ ছাড়া। কিন্তু মোস্তাফিজ বেশিদূর এগোতে দিলেন না। ১৪ রান আসে সামারাবিক্রমার ব্যাট থেকে। ক্রিজে কুশলের সঙ্গী হয়েছেন নতুন ব্যাটসম্যান চারিথ আসালঙ্কা। ১১ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার রান ৩ উইকেটে ৪৩।

টানা দুই ওভারে দুই ওপেনারকে ফেরালেন তাসকিন:

ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে তাসকিন ফেরান পাথুম নিসাঙ্কাকে। চতুর্থ ওভারে আবার বোলিংয়ে এসে বাজিমাত করেন এই ডানহাতি পেসার। আরেক ওপেনার আভিস্কা ফার্নান্দোকে ফেরান মাত্র ৪ রানে। চতুর্থ বলে এক্সট্রা কাভারের দারুণ চারের পর খোঁচা দিয়ে বসেন আভিস্কা। সহজেই সেটি তালুবন্দি করেন মুশফিক। ৪ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ২ উইকেটে ১৫ রান।

দ্বিতীয় ওভারেই তাসকিনের আঘাত:

ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে উইকেট এনে দিয়েছেন তাসকিন আহমেদ। ফিরিয়েছেন আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান পাথুম নিসাঙ্কাকে। বল ডিফেন্ড করতে গিয়ে পায়ে লাগিয়ে বসেন নিসাঙ্কা, জোরালো আবেদনে সাড়া দেন আম্পায়ার। রিভিউ নিতে যেয়েও নেননি শেষ পর্যন্ত। ১ রানে ফেরেন নিসাঙ্কা, শুরুতেই উইকেট পায় বাংলাদেশ। ৩ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার রান ১ উইকেট ১১।

‘অলিখিত’ ফাইনালে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ, একাদশে তিন পরিবর্তন:

সিরিজে ১-১ সমতা হওয়ায় বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা শেষ ম্যাচটি রূপ নিয়েছে অলিখিত ফাইনালে। আজ সোমবার সকালে চট্টগ্রামে টস হেরে ফিল্ডিং করবে স্বাগতিক শিবির। আগের দুটি ম্যাচ দিবারাত্রির হলেও এটি হচ্ছে সকাল ১০টা থেকে।

একাদশে তিন পরিবর্তন:
বাংলাদেশ নেমেছে একাদশে তিন পরিবর্তন এনে। অফ ফর্মের কারণে বাদ পড়া লিটনের জায়গায় একাদশে এসেছেন এনামুল হক বিজয়। ইনজুরিতে ছিটকে যাওয়া তানজীম হাসান সাকিবের জায়গায় মোস্তাফিজুর রহমান আর তাইজুল ইসলামের পরিবর্তে একাদশে সুযোগ পেয়েছেন রিশাদ হোসেন।

বাংলাদেশ একাদশ:
নাজমুল হোসেন শান্ত (অধিনায়ক), এনামুল হক বিজয়, মুশফিকুর রহিম, তাওহীদ হৃদয়, সৌম্য সরকার, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মেহেদী হাসান মিরাজ, রিশাদ হোসেন, শরীফুল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ ও মোস্তাফিজুর রহমান।

শ্রীলঙ্কার একাদশে এক পরিবর্তন:
শ্রীলঙ্কা নেমেছে এক পরিবর্তন নিয়ে। ইনজুরিতে বাদ পড়েছেন দিলশান মদুশঙ্ক, তার পরিবর্তে একাদশে এসেছেন মহেশ থিকশানা।

একদশে যারা— পথুম নিসাঙ্কা, আভিস্কা ফার্নান্দো, কুসল মেন্ডিস (অধিনায়ক), সাদিরা সামারাবিক্রমা, চারিথ আসালঙ্কা, জানিথ লিয়ানাগে, ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা, দুনিথ বেলালাগে, মহেশ থিকশানা, প্রমোদ মদুশান, ও লাহিরু কুমারা।

সিরিজ জয়ে শতভাগ আশাবাদী বাংলাদেশ:
টি-টোয়েন্টি সিরিজে শেষ ম্যাচে হেরে সিরিজ খুইয়েছে বাংলাদেশ। এবার ওয়ানডেতেও একই সমীকরণ। ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ দলের প্রতিনিধি মেহেদি হাসান মিরাজ জানিয়েছেন, সিরিজ জয়ে শতভাগ আশাবাদী তারা, ‘আমরা তো অবশ্যই শতভাগ আশাবাদী। ইনশাল্লাহর কৃপায় আমরা ম্যাচটা জিতব এবং আমরা সিরিজটা জিতব।’

সমান সুবিধা দেখছেন নাভিদ নেওয়াজ:
প্রথম দুই ম্যাচ দিবারাত্রির হওয়াতে টস ভাগ্য ব্যবধান গড়েছে জয়-পরাজয়ে। রাতে শিশিরের সুবিধা কাজে লাগিয়ে পরে ব্যাটিং করা দল ছিল স্বস্তিতে। তৃতীয় ওয়ানডে দিনের আলোতে হওয়ায় সমান সুবিধা দেখছেন শ্রীলঙ্কার সহকারী কোচ নাভিদ নেওয়াজ, ‘একটা ব্যাপার আমি নিশ্চিত, শিশিরের ব্যাপারটি আর থাকবে না। ফলে দুই দলের জন্য একই কন্ডিশন থাকবে।’

এজেড নিউজ বিডি ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

সেঞ্চুরির আশা জাগিয়ে থামলেন তানজীদ, চাপে বাংলাদেশ

সেঞ্চুরির আশা জাগিয়ে থামলেন তানজীদ, চাপে বাংলাদেশ
ছবি: সংগৃহীত

আগের ওভারেই হাঁকিয়েছেন ছক্কা। সে কারণেই কিনা আত্মবিশ্বাসী ছিলেন তানজীদ। পরের ওভারে হাসারাঙ্গার ওপর চড়াও হতে গিয়েই বিপদ। ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে ৮১ বলে ৮৪ রান করে লং অনে ধরা পড়েছেন তানজীদ। ১৩০ রানে পঞ্চম উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ। মুশফিকের সঙ্গী শেষ স্বীকৃত ব্যাটসম্যান মেহেদী হাসান মিরাজ।

তাওহীদের পর মাহমুদউল্লাহর বিদায়

বেশ ভালো একটা জুটি গড়েছিলেন তানজীদ হাসান তামিম ও তাওহীদ হৃদয়। তবে বেশিদূর আগাতে পারলেন না তাওহীদ। সেট হয়েও বিদায় নিলেন ২২ রানে। তার বিদায়ের পর উইকেটে এসে তানজীদকে সঙ্গ দিতে পারলেন না অভিজ্ঞ মাহমুদউল্লাহও। কুমারার অফ স্টাম্পের বাইরের বল খোঁচা দিয়ে ৪ বলে ১ রানেই বিদায় নেন তিনি।৪ উইকেট হারিয়ে এবার চাপে বাংলাদেশ।

তানজীদ-তাওহীদের জুটিতে বাংলাদেশের একশ পার

তানজীদ হাসান তামিম ও তাওহীদ হৃদয়ের ব্যাটিংয়ে ভালোই এগোচ্ছিল বাংলাদেশ। তবে আলগা শট খেলতে গিয়ে ক্যাচ তুলে বিদায় নিয়েছেন তাওহীদ।এর আগে একশ পার করেছে বাংলাদেশ।পার্ট টাইমার আসালাঙ্কাকে স্লগ করে চার মেরেছেন তানজিদ। ওই চারে বাংলাদেশ পেরিয়ে গেছে ১০০ রান। ২১.৪ ওভারে বাংলাদেশের রান ৩ উইকেটে ১০৫।

তানজিদের ফিফটিতে এগোচ্ছে বাংলাদেশ

পনেরোতম ওয়ানডে খেলতে নেমে দ্বিতীয় ফিফটির দেখা পেলেন তানজিদ হাসান তামিম। আজ চট্টগ্রামে সৌম্য সরকারের ইনজুরির কারণে বদলি হিসেবে (কনকাসন সাব) নামানো হয় তানজিদ হাসান তামিমকে। শুরু থেকেই বেশ আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করেন তিনি। পরপর দুই সঙ্গী (বিজয় ও শান্ত) হারালেও তানজিদ খেলেন দেখে-শুনে। এরপর তুলে নেন ওয়ানডে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ফিফটি। ৫১ বল খেলে ৬টি চার ও ২ ছক্কায় ফিফটি পূর্ণ করেন তিনি। তার ফিফটিতে ভর করে বাংলাদেশের ইনিংসে এগিয়ে যাচ্ছে। সঙ্গে আছেন তাওহীদ হৃদয়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ১৭ ওভারে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২ উইকেটে ৭৯ রান।

বিজয়ের পর দ্রুতই ফিরলেন শান্ত:

বিজয়ের পর দ্রুতই ফিরলেন অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্তও। দলীয় ৫৬ রানের মাথায় লাহিরু কুমারার বলে উইকেটের পেছনে কুসল মেন্ডিসের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন শান্ত। ৫ বল খেলে ১ রান আসে তার ব্যাট থেকে।

লিটনের বদলে এনামুলও ব্যর্থ:

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম দুই ওয়ানডেতে ডাক মারেন লিটন দাস। এরপর বাদ পড়েন দল থেকে। তার পরিবর্তে আজ সোমবার তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে সুযোগ দেওয়া হয় এনামুল হক বিজয়কে। তিনিও অবশ্য ব্যর্থ হয়েছেন। উদ্বোধনী জুটিতে ব্যাট করতে নেমে ২২ বল খেলে ১ চারে ১২ রান করে লাহিরু কুমারার বলে এক্সট্রা কাভারে ফার্নান্দোর হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন। দলীয় রান তখন ছিল ৮.২ ওভারে ১ উইকেটে ৫০।

লিয়ানাগের মেইডেন সেঞ্চুরিতে শ্রীলঙ্কার লড়াকু পুঁজি:

বাংলাদেশের বিপক্ষে চট্টগ্রামে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরুতে সুবিধা করতে পারেনি শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশের বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে শ্রীলঙ্কা উইকেট হারাতে থাকে নিয়মিত বিরতিতে। ১৫৪ রান তুলতেই হারিয়ে বসে ৭ উইকেট।

কিন্তু একপ্রান্ত আগলে ব্যাটিং করে যান জানিথ লিয়ানাগে। তিনি ১০২ বল খেলে ১১টি চার ও ২ ছক্কায় ক্যারিয়ারের মেইডেন সেঞ্চুরি তুলে নিয়ে অপরাজিত থাকেন। নবম ওয়ানডেতে পেলেন প্রথম শতকের দেখা। তার শতরানের ইনিংসে ভর করে ৫০ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২৩৫ রান সংগ্রহ করেছে শ্রীলঙ্কা। জিততে এবং সিরিজ জয় নিশ্চিত করতে বাংলাদেশকে করতে হবে ২৩৬ রান।

লিয়ানাগে ছাড়া চারিথ আসালঙ্কা ৫ চারে ৩৭, কুসল মেন্ডিস ৩ চারে ২৯ ও মহেশ থিকশানা করেন ১৫ রান।

বল হাতে বাংলাদেশের তাসকিন আহমেদ ১০ ওভারে ১ মেডেনসহ ৪২ রান দিয়ে ৩টি উইকেট নেন। মোস্তাফিজুর রহমান ৯ ওভারে ১ মেডেনসহ ৩৯ রান দিয়ে নেন ২টি উইকটে। মেহেদী হাসান মিরাজ ১০ ওভারে ১ মেডেনসহ ৩৮ রান দিয়ে নেন ২টি উইকেট। ১টি করে উইকেট নেন রিশাদ হোসেন ও সৌম্য সরকার।

সৌম্য ভাঙলেন শ্রীলঙ্কার প্রতিরোধ:

লিয়ানাগে-থিকশানার জুটিটি বাংলাদেশের মাথা ব্যাথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। মোস্তাফিজুর রহমান ইনজুরি আক্রান্ত হয়ে মাঠ ছাড়লে সৌম্য আসেন তার কোটার বোলিং করতে। এসেই প্রথম বলে ভাঙেন অষ্টম উইকেট জুটি। তার বলে ডিপ মিডউইকেটে উড়িয়ে মারতে গিয়ে বদিল ফিল্ডার তানজিম হাসান সাকিবের হাতে ধরা পড়েন থিকশানা। ৪০ বল খেলে কোনো বাউন্ডারি ছাড়া ১৫ রান করেন তিনি। তবে সেঞ্চুরির পথে আছেন লিয়ানাগে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তিনি ৯০ রানে ব্যাট করছেন।

লিয়ানাগে-থিকশানায় শ্রীলঙ্কার প্রতিরোধ:

১৫৪ রানেই ৭ উইকেট হারিয়ে বসা শ্রীলঙ্কা অষ্টম উইকেটে প্রতিরোধ গড়েছে। জানিথ লিয়ানাগে ও মহেশ থিকশাানা গড়েছেন এই প্রতিরোধ। অষ্ট উইকেট জুটিতে তারা দুজন ৫৯ রান সংগ্রহ করেছেন। তাতে শ্রীলঙ্কার দলীয় সংগ্রহ ২০০ পেরিয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ৪৭ ওভারে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ২১৪ রান। লিয়ানাগে ৮৪ ও থিকশানা ১৫ রানে ব্যাট করছেন।

আবারও মিরাজের আঘাত, এবার ফেরালেন হাসারাঙ্গাকে:

শ্রীলঙ্কা শিবিরে আবারও মিরাজের আঘাত। এবার তিনি ফিরিয়েছেন ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গাকে। দলীয় ১৫৪ রানের মাথায় ৩৫তম ওভারের প্রথম বলেই হাসারাঙ্গাকে বোল্ড করেন মিরাজ। ৮ বলে ১ ছক্কায় ১১ রান করে যান তিনি।

মিরাজের ঘূর্ণিতে ষষ্ঠ উইকেট হারালো শ্রীলঙ্কা:

১৩৭ রানে যেতেই ষষ্ঠ উইকেট হারালো শ্রীলঙ্কা। এবার মেহেদী হাসান মিরাজের ঘূর্ণিতে পরাস্ত হলেন দুনিথ বেলালাগে। মিরাজের বলে কাউ কর্নার দিয়ে স্লগ সুইপ শট খেলতে গিয়ে টাইমিংয়ে গড়বড় হওয়ায় মিড উইকেটে সৌম্য সরকারের হাতে ধরা পড়েন বেলালাগে। ১৮ বল খেলে ১ রান আসে তার ব্যাট থেকে।

মোস্তাফিজের দ্বিতীয় শিকার আসালঙ্কা:

দলীয় ১১৭ রানের মাথায় পঞ্চম উইকেট হারালো শ্রীলঙ্কা। মোস্তাফিজুর রহমানের বলে উইকেটের পেছনে মুশফিকুর রহিমের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হন চারিথ আসালঙ্কা। ৪৬ বল খেলে ৫ চারে ৩৭ রান করে যান তিনি।

এবার প্রথম বলে রিশাদের উইকেট:

মোস্তাফিজ বোলিংয়ে এসেই উইকেটের দেখা পেয়েছিলেন। এবার ইনিংসের ১৮তম ওভারে এসে প্রথম বলেই কুসলকে ফেরান রিশাদ হোসেন। রিশাদের টার্ন করা বলে অফে খেলতে গিয়ে খোঁচা দেন কুসল। ৫১ বলে ২৯ রান আসে তার ব্যাট থেকে। তার আউটে ভাঙে ৩৩ রানের জুটি। ক্রিজে আসালঙ্কার সঙ্গী লিয়ানাগে। ১৮ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৮০।

বোলিংয়ে এসেই মোস্তাফিজের উইকেট:

প্রথম দুই ওয়ানডেতে সুযোগ পাননি। তরুণ পেসার তানজীম হাসান সাকিব ইনজুরিতে ছিটকে যাওয়ায় সুযোগ মেলে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে। মোস্তাফিজ এই ম্যাচে প্রথম পাওয়ার প্লে’র পর বোলিংয়ের সুযোগ পান। দ্বিতীয় বলেই ফেরান সাদিরা সামারাবিক্রমাকে। লেন্থ বল ডিফেন্ড করতে যেয়ে খোঁচা দিয়ে বসেন সামারাবিক্রমা। ১৫ রানে ২ উইকেট হারানোর পর কুশল মেন্ডিসের সঙ্গে প্রতিরোধ গড়েন সামারাবিক্রমা। দুজনে পাওয়ার প্লে শেষ করেন বিপদ ছাড়া। কিন্তু মোস্তাফিজ বেশিদূর এগোতে দিলেন না। ১৪ রান আসে সামারাবিক্রমার ব্যাট থেকে। ক্রিজে কুশলের সঙ্গী হয়েছেন নতুন ব্যাটসম্যান চারিথ আসালঙ্কা। ১১ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার রান ৩ উইকেটে ৪৩।

টানা দুই ওভারে দুই ওপেনারকে ফেরালেন তাসকিন:

ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে তাসকিন ফেরান পাথুম নিসাঙ্কাকে। চতুর্থ ওভারে আবার বোলিংয়ে এসে বাজিমাত করেন এই ডানহাতি পেসার। আরেক ওপেনার আভিস্কা ফার্নান্দোকে ফেরান মাত্র ৪ রানে। চতুর্থ বলে এক্সট্রা কাভারের দারুণ চারের পর খোঁচা দিয়ে বসেন আভিস্কা। সহজেই সেটি তালুবন্দি করেন মুশফিক। ৪ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ২ উইকেটে ১৫ রান।

দ্বিতীয় ওভারেই তাসকিনের আঘাত:

ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে উইকেট এনে দিয়েছেন তাসকিন আহমেদ। ফিরিয়েছেন আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান পাথুম নিসাঙ্কাকে। বল ডিফেন্ড করতে গিয়ে পায়ে লাগিয়ে বসেন নিসাঙ্কা, জোরালো আবেদনে সাড়া দেন আম্পায়ার। রিভিউ নিতে যেয়েও নেননি শেষ পর্যন্ত। ১ রানে ফেরেন নিসাঙ্কা, শুরুতেই উইকেট পায় বাংলাদেশ। ৩ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার রান ১ উইকেট ১১।

‘অলিখিত’ ফাইনালে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ, একাদশে তিন পরিবর্তন:

সিরিজে ১-১ সমতা হওয়ায় বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা শেষ ম্যাচটি রূপ নিয়েছে অলিখিত ফাইনালে। আজ সোমবার সকালে চট্টগ্রামে টস হেরে ফিল্ডিং করবে স্বাগতিক শিবির। আগের দুটি ম্যাচ দিবারাত্রির হলেও এটি হচ্ছে সকাল ১০টা থেকে।

একাদশে তিন পরিবর্তন:
বাংলাদেশ নেমেছে একাদশে তিন পরিবর্তন এনে। অফ ফর্মের কারণে বাদ পড়া লিটনের জায়গায় একাদশে এসেছেন এনামুল হক বিজয়। ইনজুরিতে ছিটকে যাওয়া তানজীম হাসান সাকিবের জায়গায় মোস্তাফিজুর রহমান আর তাইজুল ইসলামের পরিবর্তে একাদশে সুযোগ পেয়েছেন রিশাদ হোসেন।

বাংলাদেশ একাদশ:
নাজমুল হোসেন শান্ত (অধিনায়ক), এনামুল হক বিজয়, মুশফিকুর রহিম, তাওহীদ হৃদয়, সৌম্য সরকার, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মেহেদী হাসান মিরাজ, রিশাদ হোসেন, শরীফুল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ ও মোস্তাফিজুর রহমান।

শ্রীলঙ্কার একাদশে এক পরিবর্তন:
শ্রীলঙ্কা নেমেছে এক পরিবর্তন নিয়ে। ইনজুরিতে বাদ পড়েছেন দিলশান মদুশঙ্ক, তার পরিবর্তে একাদশে এসেছেন মহেশ থিকশানা।

একদশে যারা— পথুম নিসাঙ্কা, আভিস্কা ফার্নান্দো, কুসল মেন্ডিস (অধিনায়ক), সাদিরা সামারাবিক্রমা, চারিথ আসালঙ্কা, জানিথ লিয়ানাগে, ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা, দুনিথ বেলালাগে, মহেশ থিকশানা, প্রমোদ মদুশান, ও লাহিরু কুমারা।

সিরিজ জয়ে শতভাগ আশাবাদী বাংলাদেশ:
টি-টোয়েন্টি সিরিজে শেষ ম্যাচে হেরে সিরিজ খুইয়েছে বাংলাদেশ। এবার ওয়ানডেতেও একই সমীকরণ। ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ দলের প্রতিনিধি মেহেদি হাসান মিরাজ জানিয়েছেন, সিরিজ জয়ে শতভাগ আশাবাদী তারা, ‘আমরা তো অবশ্যই শতভাগ আশাবাদী। ইনশাল্লাহর কৃপায় আমরা ম্যাচটা জিতব এবং আমরা সিরিজটা জিতব।’

সমান সুবিধা দেখছেন নাভিদ নেওয়াজ:
প্রথম দুই ম্যাচ দিবারাত্রির হওয়াতে টস ভাগ্য ব্যবধান গড়েছে জয়-পরাজয়ে। রাতে শিশিরের সুবিধা কাজে লাগিয়ে পরে ব্যাটিং করা দল ছিল স্বস্তিতে। তৃতীয় ওয়ানডে দিনের আলোতে হওয়ায় সমান সুবিধা দেখছেন শ্রীলঙ্কার সহকারী কোচ নাভিদ নেওয়াজ, ‘একটা ব্যাপার আমি নিশ্চিত, শিশিরের ব্যাপারটি আর থাকবে না। ফলে দুই দলের জন্য একই কন্ডিশন থাকবে।’

এজেড নিউজ বিডি ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Download
ঠিকানা: মনসুরাবাদ হাউজিং, ঢাকা-১২০৭ এজেড মাল্টিমিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।